রাজধানীর শ্যামপুরে ব্যবসায়ী ইউনূস হাওলাদার খুনের পরিকল্পনাকারী হিসেবে গ্রেফতার শ্যামপুর থানার এএসআই নূর আলমকে কারাগারে পাঠিয়েছেন আদালত।
 

রাজধানীর শ্যামপুরে ব্যবসায়ী ইউনূস হাওলাদার খুনের পরিকল্পনাকারী হিসেবে গ্রেফতার শ্যামপুর থানার এএসআই নূর আলমকে কারাগারে পাঠিয়েছেন আদালত।


রোববার নূর আলমকে আদালতে হাজির করে ৫ দিনের রিমান্ড আবেদন করেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানার এসআই গোলাম মোস্তফা।

তবে এদিন মামলার মূল নথি না থাকায় ঢাকার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আতিকুর রহমান তা প্রাপ্তি সাপেক্ষে রিমান্ড শুনানির দিন ধার্য করেন।

ঢাকা জেলা কোর্ট ইন্সপেক্টর মো. আসাদুজ্জামান এসব তথ্য জানান।

আগামীকাল সোমবার তার রিমান্ড শুনানি হতে পারে বলে আদালত সূত্রে জানা গেছে।

এর আগে শনিবার রাতে নূর আলমকে গ্রেফতার করে কেরানীগঞ্জ থানা পুলিশ।

গ্রেফতারের আগে পুলিশ কর্মকর্তা নূর আলমকে থানা থেকে প্রত্যাহার (ক্লোজড) করে নেয়া হয়।

জানা গেছে, গত ২৫ জুন দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানার হাসনাবাদ এলাকা থেকে অজ্ঞাত এক বৃদ্ধের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

জানা যায়, তিনি পুরান ঢাকার নবাবপুরে কৃষি যন্ত্রাংশের ব্যবসায়ী ইউনূস হাওলাদার।

লাশের পরিচয় নিশ্চিত হওয়ার পর সেদিন রাতে নিহত ব্যক্তির ছেলে আতিকুজ্জামান বাদী হয়ে অজ্ঞাত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে একটি মামলা করেন।

এ ঘটনায় নিহত ইউনূস হাওলাদারের বাড়ির ভাড়াটে ওহিদ সুমন (২৭) ও যাত্রাবাড়ীর ছাবের ওরফে শামীম (৪৩)কে গ্রেফতার করে পুলিশ।

খুনের দায় স্বীকার করে ঢাকার আদালতে জবানবন্দি দেন সুমন। তিনি জানান, খুনের পরিকল্পনাকারী এএসআই নূর আলম।

Post A Comment: