শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ বলেছেন, শিক্ষার মান উন্নয়নে সবাইকে একযোগে কাজ করতে হবে। এজন্য শিক্ষকদের মূল নিয়ামক শক্তি উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘গুণগত শিক্ষক মানে গুণগত শিক্ষা। শিক্ষকদের মান উন্নয়নে দেশে-বিদেশে প্রশিক্ষণ দেয়া হচ্ছে। তাদেরকে নিবেদিতপ্রাণ হয়ে কাজ করতে হবে। শিক্ষার মান উন্নয়নে সরকার বিভিন্ন কর্মপরিকল্পনা বাস্তবায়ন করছে।’
‘শিক্ষার মান উন্নয়নে সবাইকে কাজ করতে হবে’ 

শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ বলেছেন, শিক্ষার মান উন্নয়নে সবাইকে একযোগে কাজ করতে হবে। এজন্য শিক্ষকদের মূল নিয়ামক শক্তি উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘গুণগত শিক্ষক মানে গুণগত শিক্ষা। শিক্ষকদের মান উন্নয়নে দেশে-বিদেশে প্রশিক্ষণ দেয়া হচ্ছে। তাদেরকে নিবেদিতপ্রাণ হয়ে কাজ করতে হবে। শিক্ষার মান উন্নয়নে সরকার বিভিন্ন কর্মপরিকল্পনা বাস্তবায়ন করছে।’


সোমবার রাজধানীর সেগুনবাগিচায় আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউট মিলনায়তনে জাতীয় শিক্ষা সপ্তাহ-২০১৭ ও ২০১৮ এর জাতীয় পর্যায়ের পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে মন্ত্রী এসব কথা বলেন। অনুষ্ঠানে ২৫টি ক্যাটাগরিতে ১৮০জন শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও কর্মকর্তাকে পুরস্কৃত করা হয়।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, শিক্ষার মূল লক্ষ্য হচ্ছে নতুন প্রজন্মকে আধুনিক বাংলাদেশের নির্মাতা হিসেবে গড়ে তোলা। এজন্য নতুন প্রজন্মকে যোগ্য ও দক্ষ করে তুলতে হবে। এখন শিক্ষা মানে দক্ষতা, প্রযুক্তি ও মানসম্মত শিক্ষা। তিনি বলেন, বছরের প্রথম দিনে শিক্ষার্থীদের হাতে বই তুলে দেয়া হয়। এটি সারা পৃথিবীতে একটি অতুলনীয় উদাহরণ। এর ফলে দরিদ্র পরিবারের ছেলেমেয়েরা পড়ালেখায় উৎসাহিত হচ্ছে। গরিব শিক্ষার্থীদের সমর্থন দিতে বৃত্তি-উপবৃত্তি দেয়া হচ্ছে।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, জাতীয় পর্যায়ে শ্রেষ্ঠ প্রতিষ্ঠান, শ্রেষ্ঠ প্রধান শিক্ষক-অধ্যক্ষ-মাদ্রাসার সুপারিনটেনডেন্ট শ্রেষ্ঠ শ্রেণি শিক্ষক এবং শ্রেষ্ঠ জেলা ও উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা নির্বাচনের মাধ্যমে ভাল কাজের উৎসাহ প্রদান ও প্রণোদনা দেয়ার জন্য এ পুরস্কার প্রদান করা হচ্ছে। এছাড়া নেতৃত্ব বিকাশের জন্য শ্রেষ্ঠ রোভার, শ্রেষ্ঠ বিএনসিসি ও গালর্স গাইড গ্রুপকে পুরস্কৃত করা হয়েছে।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, স্কুল পর্যায়ে বিতর্ক, আবৃত্তি, রচনা প্রতিযোগিতা, উপস্থিত বক্তৃতা, হামদ-নাত, সঙ্গীত ও নৃত্য প্রতিযোগিতা শিক্ষার্থীদের সৃজনশীল মেধা বিকাশে সাহায্য করছে। তাদের মানসিক গঠন ও নেতৃত্বের গুণাবলী বিকাশে এসকল প্রতিযোগিতা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে।

তিনি আরো বলেন, সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতা ও খেলাধুলায় শিক্ষার্থীদের সম্পৃক্ত হতে হবে। এটা শিক্ষাকে পরিপূর্ণতা দেয়।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের সচিব মো. সোহরাব হোসাইনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য রাখেন কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগের সচিব মো. আলমগীর, মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের অতিরিক্ত সচিব ড. অরুণা বিশ্বাস এবং মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক প্রফেসর মো. মাহাবুবুর রহমান।

পরে জাতীয় শিক্ষা সপ্তাহ ২০১৭ ও ২০১৮-তে জাতীয় পর্যায়ে বিজয়ী ১৮০ জন শিক্ষার্থী, শ্রেষ্ঠ শিক্ষক ও কর্মকর্তাদের মাঝে পুরস্কারের নগদ অর্থ ও সার্টিফিকেট তুলে দেন শিক্ষামন্ত্রী।

Post A Comment: