শুধু নাকের শুষ্কতা কথাটা শুনলে কেমন লাগে তাই না? অনেকেরই নাকে শুষ্কতার সমস্যা দেখা দেয়। ত্বক ওয়েলি হোক আর শুষ্ক অথবা স্বাভাবিক। তারপরেও শুধু নাকের অংশ আলাদাভাবে শুষ্ক থাকে। তবে অতিরিক্ত কসমেটিকস এবং সাবান ব্যবহারের কারণেও এ সমস্যা হয়ে থাকে। এমনটা হলে মেকআপ করার সময় অনেক সমস্যা হয়। আর ফেইসে চলে আসে মলিন ভাব। নাকের শুষ্কতার সমস্যা কমাতে কিছু উপায় জেনে নেওয়া যাক।

    শুধু নাকের শুষ্কতা কথাটা শুনলে কেমন লাগে তাই না? অনেকেরই নাকে শুষ্কতার সমস্যা দেখা দেয়। ত্বক ওয়েলি হোক আর শুষ্ক অথবা স্বাভাবিক। তারপরেও শুধু নাকের অংশ আলাদাভাবে শুষ্ক থাকে। তবে অতিরিক্ত কসমেটিকস এবং সাবান ব্যবহারের কারণেও এ সমস্যা হয়ে থাকে। এমনটা হলে মেকআপ করার সময় অনেক সমস্যা হয়। আর ফেইসে চলে আসে মলিন ভাব। নাকের শুষ্কতার সমস্যা কমাতে কিছু উপায় জেনে নেওয়া যাক।


আমন্ড ওয়েল: চুল ও ত্বকের যত্নে আমন্ড অয়েল উপকারী। সামান্য পরিমাণে আমন্ড অয়েল নিয়ে আক্রান্ত স্থানে ম্যাসাজ করুন। নাকের শুষ্কতা দূর হয়ে যাবে।

অ্যালোভেরা জেল: দ্রুত ভালো ফল পেতে অ্যালোভেরা জেলও লাগাতে পারেন। এ ক্ষেত্রে এক চা চামচ আমন্ড ওয়েল ও এক চা চামচ অ্যালোভেরা একত্রে মেশান। মিশ্রণটি নাকে মাখুন। ভালো ফল পাবেন।

পেট্রোলিয়াম জেলি: খসখসে ও শুষ্ক নাকের সমস্যা কমাতে পেট্রোলিয়াম জেলি চমৎকার একটি ঘরোয়া উপাদান। আক্রান্ত স্থানে সামান্য পেট্রোলিয়াম জেলি লাগান। ধীরে ধীরে ম্যাসাজ করুন। সকালে ঘুম থেকে উঠে এবং রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে পেট্রোলিয়াম জেলি লাগিয়ে ম্যাসাজ করুন। এটি ময়েশ্চারাইজারের কাজ করবে।

নারকেল তেল: নারকেল তেলের মধ্যে রয়েছে ফ্যাটি এসিড। এটি ময়েশ্চারাইজার হিসেবে ভালো কাজ করে। এটি ত্বককে নরম করতে সাহায্য করে এবং নাকের লালচে ভাব দূর করে। সামান্য পরিমাণ নারকেল তেল নিয়ে নাকে ম্যাসাজ করুন। অল্প কিছুদিনের মধ্যেই ভালো ফলাফল পাবেন।

ময়েশ্চারাইজার: দিনে বা রাতে যখনই ত্বক পরিষ্কার করবেন তখনই সারা মুখে অথবা শুধু নাকের এরিয়ারতে ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করবেন। এতে অনেক ভালো ফল পাবেন।

Post A Comment: