অস্ট্রেলিয়ার একটি আদালত মঙ্গলবার একজন ক্যাথলিক আর্চবিশপকে ১৯৭০-এর দশকে শিশু যৌন নিগ্রহের ঘটনা ধামাচাপা দেয়ার দায়ে দোষী বলে রায় দিয়েছে। এই রায়ের ফলে অ্যাডেলেইডের আর্চবিশপ ফিলিপ উইলসন হলেন এই অভিযোগে দোষী সাব্যস্ত বিশ্বের সবচেয়ে বয়োজ্যেষ্ঠ ক্যাথলিক ধর্মীয় নেতা।
 

অস্ট্রেলিয়ার একটি আদালত মঙ্গলবার একজন ক্যাথলিক আর্চবিশপকে ১৯৭০-এর দশকে শিশু যৌন নিগ্রহের ঘটনা ধামাচাপা দেয়ার দায়ে দোষী বলে রায় দিয়েছে। এই রায়ের ফলে অ্যাডেলেইডের আর্চবিশপ ফিলিপ উইলসন হলেন এই অভিযোগে দোষী সাব্যস্ত বিশ্বের সবচেয়ে বয়োজ্যেষ্ঠ ক্যাথলিক ধর্মীয় নেতা।


নিউ সাউথ ওয়েলসের যাজক জেমস ফ্লেচার ১৯৭০-এর দশকে গির্জার ছেলেশিশুদের যৌন নির্যাতন করতেন। ফিলিপ উইলসন তখন সেই যাজকের সহকারী ছিলেন। এ ঘটনা তাকে জানানো হলেও তিনি তা প্রতিকারের কোনো চেষ্টা না করে গির্জার ভাবমূর্তি রক্ষার জন্য সেটি ধামাচাপা দেন।

নির্যাতনের শিকার কয়েকটি ছেলে যে উইলসনকে এ বিষয়ে অবহিত করেছিল বিচার চলার সময় তিনি তা অস্বীকার করেন।

গতমাসে উইলসন নিউক্যাসল আদালতকে জানান, ফ্লেচারের অপকর্মের বিষয়ে তিনি কিছু জানতেন না। ফ্লেচার ২০০৪ সালে নয় শিশুকে নিগ্রহের দায়ে দোষী সাব্যস্ত হন এবং ২০০৬ সালে কারাগারে বন্দী অবস্থায় মারা যান।

তার নির্যাতনের শিকার পিটার ক্রেইগ আদালতকে বলেন ১৯৭৬ সালে তিনি উইলসনকে তার নির্যাতনের কথা বিশদভাবে বর্ণনা করেন।

ক্রেইগের সাথে এ বিষয়ে কোনও কথোপকথনের কথা তার মনে নেই বলে দাবী করেন উইলসন। ম্যাজিস্ট্রেট রবার্ট স্টোন উইলসনের দাবী প্রত্যাখ্যান করেন ক্রেইগের বক্তব্যকে বিশ্বাসযোগ্য বলে রায় দেন।

ম্যাজিস্ট্রেট স্টোন বলেন, ওই যাজক জানতেন তিনি যা শুনছিলেন তা বিশ্বাসযোগ্য অভিযোগ এবং তিনি চার্চের ভাবমূর্তি রক্ষার করতে চেয়েছিলেন।

শিশু অবস্থায় যৌন নিগ্রহের শিকার হওয়া বিভিন্ন ব্যক্তি আদালতের বাইরে রায়কে স্বাগত জানান।

ক্রেইগ সাংবাদিকদের বলেন, 'চার্চের যে ভণ্ডামি, প্রতারণা ও ক্ষমতার অপব্যবহার দেখিয়েছে আদালতের সিদ্ধান্তের ফলে তা প্রকাশ হয়ে পড়বে।'
Next
This is the most recent post.
Previous
Older Post

Post A Comment: