প্রায় ৩০ বছর ধরে পুলিশের চোখে ধুলো দিয়ে পালিয়ে বেড়াতে সক্ষম হয়েছিল শুধু প্লাস্টিক সার্জারির সাহায্য নিয়ে। লুইজ কার্লোস দা রোচা নামে ওই ব্যক্তির ডাকনাম ছিল 'হোয়াইট হেড'।
অবশেষে পুলিশের জালে ব্রাজিলের সেই কুখ্যাত মাদক সম্রাট

    প্রায় ৩০ বছর ধরে পুলিশের চোখে ধুলো দিয়ে পালিয়ে বেড়াতে সক্ষম হয়েছিল শুধু প্লাস্টিক সার্জারির সাহায্য নিয়ে। লুইজ কার্লোস দা রোচা নামে ওই ব্যক্তির ডাকনাম ছিল 'হোয়াইট হেড'।


পুলিশ বলছে, দক্ষিণ আমেরিকার কোকেনের যে বিশাল সাম্রাজ্য- সেটার নিয়ন্ত্রণকারী বা নেতা ছিলেন তিনি। ব্রাজিল পুলিশের এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, শনিবার তাকে গ্রেফতার করা হয়। তারা বলছে ‘সে এমনি একজন অপরাধী যে বুদ্ধিমত্তা এবং ছায়ার মধ্যে বসবাস করতো’।

বিবিসি বাংলার এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, লুইজ কার্লোস দা রোচা বিভিন্ন সময়ে প্লাস্টিক সার্জারির মাধ্যমে যেমন নিজের চেহারা বদল করেছেন তেমনি একাধিক নাম রয়েছে তার। সবশেষ ভিটর লুইজ নামে তার পরিচিতি ছিল। পুলিশ এখন নিশ্চিত করেছে এই দুই নাম একই ব্যক্তির।

ব্রাজিলের পুলিশ বলছে, বলিভিয়া, পেরু, কলাম্বিয়াতে সে কোকেইন উৎপাদন করতো এবং সেটা ইউরোপের বিভিন্ন দেশে এবং আমেরিকাতে পাঠাতো। তার সংস্থার ভারি অস্ত্র তৈরি, নানা প্রকার সহিংসতার অভিযোগ রয়েছে।

পুলিশ বলছে, এর আগে তার বিরুদ্ধে যেসব অভিযোগ রয়েছে তার ফলে লুইজ কার্লোস দা রোচাকে ৫০ বছর জেলে কাটাতে হবে। তাকে ধরার জন্য অপারেশন স্পেকট্রাম নামে অভিযান চালানো হয়। প্রতি মাসে ৫ টনের মতো কোকেন উৎপাদন করতো তার সংস্থা।

Post A Comment: