পুঁজিবাজারের প্রকৌশল খাতের তালিকাভুক্ত বহুজাতিক কোম্পানি সিঙ্গার বাংলাদেশ রিজার্ভ থেকে ডিভিডেন্ড ঘোষণার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। ৩১ ডিসেম্বর, ২০১৭ সমাপ্ত হিসাব বছরে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) ৯.৭৯ টাকা হলেও কোম্পানিটি শেয়ার প্রতি ১০ টাকা মুনাফা প্রদানের ঘোষণা দিয়েছে। অর্থাৎ সদ্য সমাপ্ত বছরে কোম্পানিটি মুনাফার তুলনায় ০.২১ টাকার বেশি মুনাফা বণ্টন করবে, যা কোম্পানিটির সঞ্চিত মুনাফা বা রির্জাভ থেকে প্রদান করা হবে।
 

পুঁজিবাজারের প্রকৌশল খাতের তালিকাভুক্ত বহুজাতিক কোম্পানি সিঙ্গার বাংলাদেশ রিজার্ভ থেকে ডিভিডেন্ড ঘোষণার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। ৩১ ডিসেম্বর, ২০১৭ সমাপ্ত হিসাব বছরে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) ৯.৭৯ টাকা হলেও কোম্পানিটি শেয়ার প্রতি ১০ টাকা মুনাফা প্রদানের ঘোষণা দিয়েছে। অর্থাৎ সদ্য সমাপ্ত বছরে কোম্পানিটি মুনাফার তুলনায় ০.২১ টাকার বেশি মুনাফা বণ্টন করবে, যা কোম্পানিটির সঞ্চিত মুনাফা বা রির্জাভ থেকে প্রদান করা হবে।


ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) সূত্রে জানা যায়, ৩১ ডিসেম্বর ২০১৭ সমাপ্ত হিসাব বছরে ১০০ শতাংশ ক্যাশ ডিভিডেন্ড ঘোষণা করেছে সিঙ্গার বাংলাদেশ লিমিটেড। অর্থাৎ প্রত্যেকটি শেয়ারের বিপরীতে বিনিয়োগকারীদের ১০ টাকা ডিভিডেন্ড প্রদান করছে কোম্পানিটি। এতে করে কোম্পানিটির ব্যয় হবে ৭৬ কোটি ৬৯ লাখ ৪০ হাজার টাকা।

এদিকে, সমাপ্ত হিসাব বছরে কোম্পানিটির কর পরবর্তী মুনাফা হয়েছে ৭৫ কোটি ৮ লাখ ৪০ হাজার টাকা। অর্থাৎ এ সময় কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৯.৭৯ টাকা। আগের বছর একই সময় কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছিল ৭.১২ টাকা।

আলোচিত সময়ে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) হয়েছে ২৮.১৭ টাকা। এ সময় শেয়ার প্রতি নগদ কার্যকরি অর্থ প্রবাহ (এনওসিএফপিএস) হয়েছে ৫.১৭ টাকা।

ডিভিডেন্ড অনুমোদনের জন্য কোম্পানিটি আগামী ১৫ মে বার্ষিক সাধারণ সভার (এজিএম) আয়োজন করবে। এজন্য আগামী ৯ এপ্রিল রেকর্ড ডেট নির্ধারণ করা হয়েছে।

সূত্র জানায়, প্রকৌশল খাতের তালিকাভুক্ত কোম্পানিটির বর্তমানে ১০২ কোটি ২৫ লাখ টাকার পুঞ্জিভূত আয় বা রিজার্ভ অ্যান্ড সারপ্লাস রয়েছে। কোম্পানিটির অনুমোদিত মূলধন ১০০ কোটি টাকা ও পরিশোধিত মূলধন ৭৬ কোটি ৬৯ লাখ ৪০ হাজার টাকা।

কোম্পানিটির সর্বমোট শেয়ারের ৫৭ শতাংশ উদ্যোক্তা/ পরিচালকদের নিকট রয়েছে। বাকি শেয়ারের ১২.৪৩ শতাংশ প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারী, ১১.১৯ শতাংশ বিদেশি বিনিয়োগকারী ও ১৯.৩৮ শতাংশ সাধারণ বিনিয়োগকারীদের কাছে রয়েছে।

উল্লেখ্য, সর্বশেষ কার্যদিবসে (১৫ মার্চ) কোম্পানিটির সমাপনী বাজার দর ছিল ১৮২.৫০ টাকা। ওইদিন কোম্পানিটির শেয়ার দর ০.৬ টাকা বা ০.৩৩ শতাংশ কমেছিল। বিগত ৫২ সপ্তাহে কোম্পানিটির শেয়ার দর সর্বোচ্চ ২০৭.৯০ টাকা থেকে সর্বনিম্ন ১৭৫.৫০ টাকায় লেনদেন হয়েছে।

Post A Comment: