মামলার শুরু ১৯১৮ সালে। স্থান অবিভক্ত ভারতের রাজস্থান। সম্পত্তির ভাগ পাওয়া নিয়ে দায়ের হওয়া সেই মামলা পেরিয়েছে বছরের পর বছর। ইতোমধ্যে দেশভাগ ও স্বাধীনতা দেখেছে ভারত। অবশেষে ১০০ বছর পর সেই মামলার সুরাহা হল পাকিস্তানের সুপ্রিম কোর্টে। মঙ্গলবার সেই মামলায় রায় দিল পাকিস্তানের শীর্ষ আদালত।
১০০ বছর পর মামলার রায় 

মামলার শুরু ১৯১৮ সালে। স্থান অবিভক্ত ভারতের রাজস্থান। সম্পত্তির ভাগ পাওয়া নিয়ে দায়ের হওয়া সেই মামলা পেরিয়েছে বছরের পর বছর। ইতোমধ্যে দেশভাগ ও স্বাধীনতা দেখেছে ভারত। অবশেষে ১০০ বছর পর সেই মামলার সুরাহা হল পাকিস্তানের সুপ্রিম কোর্টে। মঙ্গলবার সেই মামলায় রায় দিল পাকিস্তানের শীর্ষ আদালত।


ভারত-পাকিস্তান ভাগ হওয়ার পূর্ববর্তী সময়ে রাজপুতনার ভাওয়ালপুরের ৭০০ একর জমি নিয়ে সমস্যার সূত্রপাত। দেশভাগের পরে সেই মামলা চলে যায় পাকিস্তানের পাঞ্জাব প্রদেশের ভাওয়ালপুরের দায়রা আদালতের কাছে। ২০০৫ সালে সেই মামলা স্থানান্তরিত হয় শীর্ষ আদালতে।

মামলাকারীদের দাবি, তাদের অগ্রজ শাহাবুদ্দিন শের খানের ছেলে ছিলেন। তিনিই ছিলেন বিতর্কিত এই জমির মালিক। ১৯১৮ সালে মৃত্যু হয় শাহাবুদ্দিনের। সেই থেকেই চলছে সম্পত্তি নিয়ে বিবাদ।

প্রধান বিচারপতি মিয়া সাকিব নিসারের নেতৃত্বে তিন বিচারপতির এক বেঞ্চের সামনেই হয় এই মামলার শুনানি। চূড়ান্ত রায়ে জানানো হয়, ইসলামিক আইন অনুযায়ী বর্তমান উত্তরাধিকারীদের মধ্যে সম্পত্তি সমান ভাগ করে দেয়া হোক। যাদের আইনত অধিকার আছে এই সম্পত্তির ওপর তাদের কাউকে বঞ্চিত করবে না আদালত।

Post A Comment: