পৌষ মাস পেরিয়ে যাচ্ছে তবুও শীত নেই এমন আক্ষেপ ছিল রাজধানীবাসীর কণ্ঠে। তবে এবার দেখা মিলেছে অপেক্ষার সেই শীতের। গতকাল বৃহস্পতিবার থেকে রাজধানীসহ সারাদেশেই বইছে মৃদু শৈত্যপ্রবাহ।
বইছে মৃদু শৈত্যপ্রবাহ, শীত আরও বাড়বে 

পৌষ মাস পেরিয়ে যাচ্ছে তবুও শীত নেই এমন আক্ষেপ ছিল রাজধানীবাসীর কণ্ঠে। তবে এবার দেখা মিলেছে অপেক্ষার সেই শীতের। গতকাল বৃহস্পতিবার থেকে রাজধানীসহ সারাদেশেই বইছে মৃদু শৈত্যপ্রবাহ।


শুক্রবার বেলা বাড়লেও সূর্যের দেখা মেলেনি কোথাও কোথাও। শীত ও ঘন কুয়াশার প্রভাব পড়েছে জনজীবনে। খেটে খাওয়া মানুষেরা কাজে যেতে না পেরে দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন। শীতের কারণে কষ্টে পড়েছে সমাজের ছিন্নমূল মানুষেরা।

ঘন কুয়াশায় চরমভাবে ব্যাহত হচ্ছে বিমান ও নৌযান চলাচল। ঢাকার শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে ভোররাত থেকে বন্ধ আছে বিমান ওঠানামা। কাওরাকান্দিতে ফেরি চলাচলও বন্ধ। চাঁদপুর-শরিয়তপুর রুটে বন্ধ আছে লঞ্চ চলাচল। উত্তরাঞ্চলের বিভিন্ন জেলায় ঘন কুয়াশায় দুর্ঘটনার ঝুঁকি নিয়ে সড়কে চলছে গাড়ি।


আবহাওয়া অধিদপ্তর সূত্র  জানিয়েছে, ডিসেম্বর থেকে শীত শুরু হওয়ার কথা থাকলেও এবার বঙ্গোপসাগরে বেশ কিছু নিম্নচাপ দেখা দেয়ায় আসতে অনেকটা দেরি হয়েছে। তবে এই জানুয়ারিতেই আরও দুটি শৈত্যপ্রবাহ আসতে পারে বলে আভাস দিয়েছে আবহাওয়া বিভাগ।

আবহাওয়াবিদ বজলুর রশিদ  বলেন, শুক্রবার দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ৬ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস রেকর্ড করা হয়েছে চুয়াডাঙ্গায়। এ মৌসুমে দেশের এটাই সর্বনিম্ন তাপমাত্রা। দুই-এক দিনের মধ্যেই তাপমাত্রা আরও কমে যেতে পারে বলে জানান তিনি।

বজলুর রশিদ বলেন, আজকে ঢাকা সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ১০.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস। রংপুরে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ৯ ডিগ্রি সেলসিয়াস, দিনাজপুরে তাপমাত্রা ৮.৯ ডিগ্রি সেলসিয়াস, যশোরে ৭.৬ এবং ইশ্বরদীতে সর্বনিম্ন তাপত্রামাত্রা ৭.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস রেকর্ড করা হয়েছে।

খুলনা, রাজশাহী, রংপুর, সিলেটসহ দেশের বেশ কয়েকটি জেলায় শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে। তাপমাত্রা আরও কমে যেতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

কেন আবহাওয়ার এই বিরূপ আচরণ এমন প্রশ্নে বজলুর রশিদ বলেন, আসলে বৈশ্বিক জলবায়ুর পরিবর্তনে উষ্ণতা বেড়ে গেছে। ক্লাইমেট চেঞ্জ এর কারণে মূলত আবহাওয়ার এই বিরূপ আচরণ।

গত কয়েক বছর ধরেই আবহাওয়ার আচরণ অনেকটা অস্বাভাবিক। গত দুই বছর ছিল স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি গরম, গত বছর শীত মৌসুমও ছিল সংক্ষিপ্ত। আর চলতি বছর বৃষ্টি হয়েছে স্বাভাবিকের তুলনায় অনেক বেশি। আর আবহাওয়ার এই বিরূপ আচরণের কারণে শীত আসতে দেরি হয়েছে, এবারও শীতের ব্যাপ্তি সংক্ষিপ্ত হবে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর।

আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, উপ-মহাদেশীয় উচ্চচাপ বলয়ে বর্ধিতাংশ পশ্চিম বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন এলাকা পর্যন্ত বিস্তৃত রয়েছে। মৌসুমী লঘুচাপ দক্ষিন বঙ্গোপসাগরে অবস্থান করছে। আংশিক মেঘলা আকাশসহ সারা দেশের আবহাওয়া শুষ্ক থাকতে পারে। মধ্যরাত থেকে সকাল পর্যন্ত দেশের কোথাও কোথাও মাঝারি থেকে ঘন কুয়াশা পড়তে পারে।

চুয়াডাঙ্গা, শ্রীমঙ্গল অঞ্চলসহ রাজশাহী, ঢাকা, ময়মনসিংহ, রংপুর, দিনাজপুর ও খুলনা বিভাগের ওপর দিয়ে মৃদু থেকে মাঝারি ধরনের শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে এবং তা অব্যাহত থাকতে পারে। সংলগ্ন এলাকায় বিস্তার লাভ করতে পারে।

সারাদেশে রাতের এবং দিনের তাপমাত্রা কিছুটা হ্রাস পেতে পারে। ঢাকায় বাতাসের গতি উত্তর ও উত্তর পশ্চিম দিক থেকে ঘণ্টায় ০৬ থেকে ১২ কিলোমিটার।

Post A Comment: