বেগম খালেদা জিয়াকে কারাগারে নেয়া হলে সারাদেশ আগুন জ্বলবে বলে বিএনপির পক্ষ থেকে আসা হুঁশিয়ারির প্রেক্ষিতে পাল্টা সতর্কতা এসেছে সরকারের পক্ষ থেকে। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছেন, রায় নিয়ে কোনো বিশৃঙ্খলা হলে দমন করা হবে কঠোরভাবে।

বেগম খালেদা জিয়াকে কারাগারে নেয়া হলে সারাদেশ আগুন জ্বলবে বলে বিএনপির পক্ষ থেকে আসা হুঁশিয়ারির প্রেক্ষিতে পাল্টা সতর্কতা এসেছে সরকারের পক্ষ থেকে। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছেন, রায় নিয়ে কোনো বিশৃঙ্খলা হলে দমন করা হবে কঠোরভাবে।


আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর শক্তি ও সক্ষমতার বিষয়টিও স্মরণ করিয়ে দিয়ে মন্ত্রী বলেছেন, নিরাপত্তা বাহিনীকে আগের বাহিনীর সঙ্গে তুলনা করা যাবে না।

শুক্রবার পুরান ঢাকার ঢাকেশ্বরী মন্দিরে হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের ‘পরিবার দিবস’ এর অনুষ্ঠানে যোগ দেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। সেখানে সাংবাদিকরা তাকে নানা বিষয়ে প্রশ্ন করেন। তবে সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব পায় খালেদা জিয়ার মামলার বিষয়টি।

তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে দুর্নীতি দমন কমিশনের করা জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় রায়ের তারিখ ঘোষণা হয়েছে আগামী ৮ ফেব্রুয়ারি। এই মামলায় আত্মপক্ষ সমর্থনে দেয়া বক্তব্যে খালেদা জিয়া স্বয়ং সাজার আশঙ্কা করেছেন। বলেছেন, সরকার তার বিরুদ্ধে একটি রায় দিয়ে তাকে রাজনীতি থেকে সরাতে চায়।

বৃহস্পতিবার রায়ের তারিখ ঘোষণার দিন সকালে দলীয় কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর দাবি করেন, এই মামলার রায় আগেই লেখা রয়েছে। সরকারের বিচারের নামে প্রহসনের দরকার ছিল না।

আর বিকালে রাজধানীতে এক আলোচনায় বিএনপি নেতা রুহুল কবির রিজভী বলেন, খালেদা জিয়াকে জেলে নেয়া হলে সারা দেশে আগুন জ্বলবে।

অন্য এক আলোচনায় দলের আরেক নেতা খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেছেন, খালেদা জিয়াকে জেলে ঢুকানোর চেষ্টা হলে পরিণতি ভালো হবে না।

বিএনপি নেতাদের এসব বক্তব্যের প্রতিক্রিয়া জানতে চাইলে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘খালেদা জিয়ার মামলার রায়কে কেন্দ্র করে কোনো বিশৃঙ্খলা হলে নিরাপত্তা বাহিনী কঠোরভাবে দমন করবে।’

বিএনপিকে সতর্ক করে দিয়ে মন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের নিরাপত্তা বাহিনীকে আগের নিরাপত্তা বাহিনীর সঙ্গে তুলনা করা চলবে না। তারা জনগণের বন্ধু, তারা পেশাদার পুলিশ। কাজেই বিশৃঙ্খলা কিংবা ধ্বংসাত্মক কিছু ঘটলে আমাদের নিরাপত্তা বাহিনী ব্যবস্থা নেবে।’

গত ১৬ জানুয়ারি নারায়ণগঞ্জে মেয়র সেলিনা হায়াৎ আইভী এবং সংসদ সদস্য এ কে এম শামীম ওসমান সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ নিয়ে এক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, ‘এই ঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে মামলা করেছে। ভিডিও ফুটেজ দেখে অস্ত্রধারী সবার বিরুদ্ধেই যথাযথ ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

ঢাকেশ্বরী মন্দিরের জমি বেদখলের বিষয়ে জানতে চাইলে মন্ত্রী বলেন, ‘এই ইস্যুতে যদি কিছু করার থাকে তাহলে আমরা করব।’

এর আগে পরিবার দিবসের মতো আয়োজনের প্রশংসা করেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। বলেন, ‘আমরা এক সময় একান্নবর্তী পরিবার ছিলাম। একান্নবর্তী পরিবার বাংলোদেশের বড় শক্তি। কিন্তু পারিবারিক সেই বন্ধন হারিয়ে যাচ্ছে। যেভাবেই হোক আমাদেরকে এই ধারাটা ধরে রাখতে হবে।’

পরিবার দিবসের অনুষ্ঠান উপলক্ষে ঢাকেশ্বরী মন্দিরে দিনভর আলোচনা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, খাওয়া-দাওয়ার আয়োজন করা হয়েছে।

অনুষ্ঠানে মেয়েরা লাল রঙের শাড়ি, ছেলেরা সাদা-লালের মিশেলে পাঞ্জাবি পড়ে আসে। ছোট ছেলে মেয়েরাও আসে বর্ণিল পোশাক পড়ে। এই ধরনের আয়োজন পারিবারিক বন্ধনকে আরও সৃদৃঢ় করবে বলে আশা করছেন আয়োজকরা।

Post A Comment: