নির্বাচনী সহিংসতা দমনে হন্ডুরাসে সান্ধ্য আইন জারি করেছে দেশটির সরকার। শুক্রবার থেকে টানা ১০ দিন এই আইন জারি থাকবে। জনগণের চলাফেরার স্বাধীনতা সীমিত করা হয়েছে। পুলিশ ও সেনাবাহিনীকে দেয়া হয়েছে বাড়তি ক্ষমতা।
নির্বাচনী সহিংসতা দমনে হন্ডুরাসে কারফিউ জারি 

নির্বাচনী সহিংসতা দমনে হন্ডুরাসে সান্ধ্য আইন জারি করেছে দেশটির সরকার। শুক্রবার থেকে টানা ১০ দিন এই আইন জারি থাকবে। জনগণের চলাফেরার স্বাধীনতা সীমিত করা হয়েছে। পুলিশ ও সেনাবাহিনীকে দেয়া হয়েছে বাড়তি ক্ষমতা।


বার্তা সংস্থা রয়টার্সের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য নিশ্চিত করা হয়েছে।

নির্বাচনী সহিংসতায় একজন নিহত ও ২০ জনের বেশি আহত হওয়ার পর সরকার এ পদক্ষেপ নিয়েছে বলে খবরে উল্লেখ করা হয়েছে।

ভোটের পাঁচদিন পরও গণনা শেষ না হওয়ায় দেশটিতে এখন তীব্র অস্থিরতা বিরাজ করছে। লুট ও সহিংসতার অভিযোগে শতাধিক ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

মন্ত্রিপরিষদের সদস্য এবাল দিয়াজ গণমাধ্যমকে বলেছেন, ‘জনগণের সাংবিধানিক অধিকার স্থগিতের বিষয়টি অনুমোদন করা হয়েছে যেন সশস্ত্র বাহিনী ও পুলিশ দেশজুড়ে ছড়িয়ে পড়া সহিংসতা দমাতে পারে।’

ক্ষমতাসীন প্রেসিডেন্ট হুয়ান অরল্যান্ডো হার্নান্দেজ ও বিরোধী জোটের প্রার্থী সালভাদর নাসরাল্লা উভয়েই নিজেদের বিজয়ী দাবি করেছেন।

ভোটের আগে হওয়া জনমত জরিপে নাসরাল্লা প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীর চেয়ে ৫ পয়েন্ট এগিয়ে ছিলেন। যদিও ৯০ শতাংশ গণনা শেষে হার্নান্দেজই পাঁচ হাজার ভোটের ব্যবধানে এগিয়ে আছেন বলে নির্বাচনী সংস্থাগুলোর ভাষ্য।

Post A Comment: