দাবি করা ১০ লাখ টাকা চাঁদা না পেয়ে সাভারের আশুলিয়ায় একটি ইলেকট্রনিক্স অ্যান্ড ফার্নিচারের দোকানে হামলা চালিয়ে ব্যাপক ভাঙচুর ও লুটপাট করেছে একদল অস্ত্রধারী সন্ত্রাসী।
 

দাবি করা ১০ লাখ টাকা চাঁদা না পেয়ে সাভারের আশুলিয়ায় একটি ইলেকট্রনিক্স অ্যান্ড ফার্নিচারের দোকানে হামলা চালিয়ে ব্যাপক ভাঙচুর ও লুটপাট করেছে একদল অস্ত্রধারী সন্ত্রাসী।


শুক্রবার দিবাগত রাতে আশুলিয়া ইউনিয়নের আউকপাড়া আদর্শগ্রামে মেসার্স মোল্ল্যা ইলেকট্রনিক্স এন্ড ফার্নিচারে এ হামলা ও লুটপাটের ঘটনা ঘটে।

সন্ত্রাসীরা এ সময় একজনকে কুপিয়ে ও দুইজনকে পিটিয়ে আহত করেছে। পরে তাদেরকে উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য সাভারের একটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

ব্যবসায়ী আবু সুফিয়া মিঠু বলেন, ‘গত কয়েকদিন ধরে আশুলিয়ার আউকপাড়া আদর্শগ্রামে আমার ব্যবসা-প্রতিষ্ঠানে সাভার উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক কামাল উদ্দিন আহমেদের ছেলে রাসেল মাদবরের নির্দেশে ১০ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করেন স্থানীয় সন্ত্রাসী সাদ্দাম মিয়া। চাঁদার টাকা দিতে অস্বীকার করায় শুক্রবার রাতে রাসেল মাদবরের নেতৃত্বে সন্ত্রাসীরা আমার ইলেকট্রনিক্স শোরুমে হামলা চালিয়ে ব্যাপক ভাঙচুর করে।’

এ সময় সন্ত্রাসীরা শোরুমের ১০টি টেলিভিশন, কয়েকটি ফ্রিজ, চেয়ার-টেবিল ভাঙচুর করে নগদ দুই লাখ টাকা ও ছয়টি মোবাইল ফোন লুটে নেয় বলে অভিযোগ করেন তিনি।

তিনি বলেন, ‘একটি প্রাইভেটকার ভাঙচুর ও আমার বাড়িতে হামলা করে তারা। হামলায় আমি, আমার ভাই মনিরুজ্জামান সেতু ও মা মনজিরা বেগম আহত হয়।’

এদিকে হামলা ও ভাঙচুরের ঘটনার খবর পেয়ে শনিবার সকালে আশুলিয়া থানা পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে।

স্থানীয়দের দাবি, সাভার উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক কামাল উদ্দিন আহমেদের ছেলে রাসেল মাদবর আশুলিয়ার বিভিন্ন এলাকায় সন্ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করেছে, তাদের বিরুদ্ধে কেউ অভিযোগ করলে হত্যার হুমকি দেওয়া হয়।

বিষয়টি তদন্ত করে ওই সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন আশুলিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুল আউয়াল।

এ ঘটনায় আশুলিয়া থানায় একটি মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

তবে অভিযোগের বিষয়ে জানতে রাসেল মাদবরের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করেও তাকে পাওয়া যায়নি।

Post A Comment: