ঝিনাইদহের কালীগঞ্জে আসামি ধরতে গিয়ে নারীদের উপর নির্যাতন চালিয়েছে পুলিশের এক এসআই। এমন অভিযোগ করেছেন বেশ কয়েকজন নারী। পুলিশের নির্যাতনের শিকার হয়ে এক বৃদ্ধ নারী হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন।বুধবার রাত ১২টার দিকে কালীগঞ্জ উপজেলার ঘোপপাড়া গোরিনাথপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটেছে।
আসামি ধরতে গিয়ে মাকে মারধর করল পুলিশ 

ঝিনাইদহের কালীগঞ্জে আসামি ধরতে গিয়ে নারীদের উপর নির্যাতন চালিয়েছে পুলিশের এক এসআই। এমন অভিযোগ করেছেন বেশ কয়েকজন নারী। পুলিশের নির্যাতনের শিকার হয়ে এক বৃদ্ধ নারী হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন।বুধবার রাত ১২টার দিকে কালীগঞ্জ উপজেলার ঘোপপাড়া গোরিনাথপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটেছে।


পুলিশের নির্যাতনের স্বীকার আসামি টিপু সুলতানের মা সালেহা বেগম জানান, রাত সাড়ে ১২টার দিকে কালীগঞ্জ উপজেলার বারবাজার পুলিশ ফাড়ির ইনচার্জ এসআই বিকাশ ও টুআইসি আজাহারের নেৃতত্বে পুলিশ তাদের বাড়িতে যায়। এ সময় তার ছেলে কাষ্টভাঙ্গা ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক প্যানেল চেয়ারম্যান টিপু সুলতানকে আটক করে। আটকের কারণ জানতে চাইলে তাকে ও টিপুর স্ত্রী জোসনাকে লাথি, চড়-থাপ্পড় মেরে নির্যাতন করে পুলিশের এসআই বিকাশ।

টিপুর বোন জামাই রকিবুল ইসলাম জানান, রাতে পুলিশ তাদের বাড়িতে গিয়ে টিপুকে আটক করে। এ সময় বাড়ির লোকজন কারণ জানতে চাইলে মারপিট ও লাথি মারে। এক পর্যায়ে তারা টিপুকে নিয়ে চলে আসে।

গুরুতর আহত অবস্থায় টিপুর মা সালেহা বেগমকে কালীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়াছে।

কালীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক মাহফুজুর রহমান সোহাগ জানান, রাতে সালেহাকে ভর্তি করেন তার স্বজনেরা। তার শরীরে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে।

অভিযুক্ত বারবাজার পুলিশ ফাড়ির এসআই বিকাশ কুমার বলেন, ‘রাতে ঘোপপাড়া গ্রামে মাদক ব্যাবসায়ী টিপু সুলতানকে আটক করতে যাই। তার বিরুদ্ধে এর আগে মাদকের মামলা রয়েছে। আমরা তার কাছ থেকে কিছু ইয়াবা উদ্ধার করি। তাকে আটকের সময় পরিবারের লোকজন পুলিশের কাজে বাধা দেয়, তবে পুলিশ কোনো নারীকে নির্যাতন করেনি।’

কালীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মিজানুর রহমান বলেন, ‘আটক টিপু সুলতান এলাকার চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী। রাতে পুলিশ তাকে আটক করেছে। তবে পুলিশের নির্যাতনের স্বীকার হয়েছেন এমন কোন নারী বা ব্যক্তি থানায় অভিযোগ দেয়নি। আমরা অভিযোগ পেলে বিষয়টি তদন্ত করে দেখবো।’

Post A Comment: