‘ও কি গাড়িয়াল ভাই, কতই রব আমি পন্থের পানে চাইয়া রে’...। কণ্ঠরাজ আব্বাস উদ্দিনের মন মাতানো এ গানটি যেমন আর শোনা যায় না, ঠিক তেমনি গ্রাম বাংলার এক সময়ের জনপ্রিয় ঐতিহ্যবাহী গরুর গাড়িতে বিয়ে আর চোখে পড়ে না। ফলে গাড়িয়াল পেশাও প্রায় হারিয়ে গেছে।
ঐতিহ্য রক্ষায় গাইবান্ধায় গরুর গাড়িতে বিয়ে 

‘ও কি গাড়িয়াল ভাই, কতই রব আমি পন্থের পানে চাইয়া রে’...। কণ্ঠরাজ আব্বাস উদ্দিনের মন মাতানো এ গানটি যেমন আর শোনা যায় না, ঠিক তেমনি গ্রাম বাংলার এক সময়ের জনপ্রিয় ঐতিহ্যবাহী গরুর গাড়িতে বিয়ে আর চোখে পড়ে না। ফলে গাড়িয়াল পেশাও প্রায় হারিয়ে গেছে।


গ্রামের এই ঐতিহ্যকে ধরে রাখতে গাইবান্ধার পলাশবাড়ী উপজেলার হোসেনপুর ইউনিয়নের চেরেঙ্গা গ্রামে গরুর গাড়িতে বরযাত্রার আয়োজন করা হয়। ওই গ্রামের আব্দুন নুরের ছেলে আরিফুল ইসলাম শুক্রবার জুম্মার নামাজের পর বর সাজিয়ে যাত্রী নিয়ে গরুর গাড়িযোগে গ্রামের দীর্ঘ পথ পাড়ি দিয়ে একই উপজেলার দৌলতপুর গ্রামের লিটন মিয়ার মেয়ে সুরাইয়া আকতারকে বিয়ে করার জন্য যান।



এ সময় উৎসুক জনতা পথের দুই ধারে ভীড় জমায় ও রাস্তায় রাস্তায় থামিয়ে গরুর গাড়ির ছবি তোলে।

আরিফুল ইসলাম বলেন, ‘গ্রাম বাংলার ঐতিহ্য ধরে রাখতেই গরুর গাড়িতে এ বিয়ে আয়োজন করি। এতে যান্ত্রিক পরিবহন থেকে বেশ ভাল লাগছে।’

গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার কাটাখালী বালুয়া হাট বর্ণমালা মাল্টিমিডিয়া স্কুলের শিক্ষক আহমোদুল্লাহ বলেন, ‘আরিফুল ইসলাম বিয়েতে হারিয়ে যাওয়া ঐতিহ্যবাহী গরুর গাড়ি ব্যবহার করে মানুষকে তাক লাগিয়ে দিয়েছে।’

Post A Comment: