দেশের বাইরে থাকা বাংলাদেশি নাগরিকদের ভোটার করার উদ্যোগ নিচ্ছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। কোন প্রক্রিয়ায় প্রবাসীদের ভোটার করা যায় তা পর্যালোচনা করছে সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠানটি। সম্প্রতি বিষয়টি নির্বাচন কমিশনের বৈঠকে উপস্থাপন করে জাতীয পরিচয় অনুবিভাগ। পরে কমিশন এ বিষয়ে ভালোভাবে পর্যালোচনা করার জন্য বলেছে। ইসি সূত্রে এসব তথ্য জানা যায়।
Expatriates-can-be-online-voters 

দেশের বাইরে থাকা বাংলাদেশি নাগরিকদের ভোটার করার উদ্যোগ নিচ্ছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। কোন প্রক্রিয়ায় প্রবাসীদের ভোটার করা যায় তা পর্যালোচনা করছে সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠানটি। সম্প্রতি বিষয়টি নির্বাচন কমিশনের বৈঠকে উপস্থাপন করে জাতীয পরিচয় অনুবিভাগ। পরে কমিশন এ বিষয়ে ভালোভাবে পর্যালোচনা করার জন্য বলেছে। ইসি সূত্রে এসব তথ্য জানা যায়।


এ বিষয়ে জানতে চাইলে জাতীয় পরিচয়পত্র নিবন্ধন অনুবিভাগের মহাপরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোহাম্মদ সাইদুল ইসলাম পরিবর্তন ডটকমকে বলেন, আমরা প্রবাসীদের ভোটার করার জন্য চিন্তাভাবনা করছি। কোন প্রক্রিয়ায়, কিভাবে সহজে তাদেরকে জাতীয় পরিচয়পত্রের (এনআইডি) সাথে সম্পৃক্ত করা যায় সেটি পর্যালোচনা করা হচ্ছে। বর্তমানে এনআইডি সংশোধনের জন্য অনলাইনের মাধ্যমে আবেদন করা যায়। প্রবাসীরা যাতে অনলাইনে ভোটার হওয়ার জন্য আবেদনও করতে পারেন। তবে যাতে এটি ব্যবহার করে কেউ অনৈতিক সুবিধা না নিতে পারে, সেটি পরীক্ষা নিরীক্ষা করে দেখা হচ্ছে।

এ বিষয়ে আমরা কর্মশালা করারও সিদ্ধান্ত নিয়েছি। তবে অনলাইনে ভোটার হওয়ার জন্য আবেদন করলেও আঙুলের ছাপ ও চোখের আইরিশের জন্য তাকে সশরীরে উপস্থিত থাকতে হবে। কবে নাগাদ এটি চালু করতে পারবো এখনি তা বলা যাচ্ছে না। তবে খুব শিগগিরই করা চেষ্ট করা হবে যোগ করেন তিনি।

তিনি আরো জানান, সবাইকে এনআইডি সেবার আওতায় আনার জন্য সব ধরণের উদ্যোগই নেওয়া হচ্ছে। আমরা প্রাথমিকভাবে খোঁজ নিচ্ছি যে, কোন দেশে আমাদের কি পরিমাণ বাংলাদেশি রয়েছেন। যদি দেখি যে, কোনো দেশে সংখ্যা বেশি, তাহলে তাদেরকে ভোটার করার জন্য চার-পাঁচদিন সময় দিয়ে আমাদের টিম পাঠিয়ে দেয়া হবে। দেশের মতোই নিবন্ধনের সব কাজ শেষ করে টিম দেশে চলে আসবে। তারপর তাদের তথ্যগুলো সংশ্লিষ্ট উপজেলায় পাঠিয়ে দেয়া হবে। সবকিছু ঠিক থাকলে তাদের কার্ড প্রিন্ট দিয়ে দূতাবাসে পাঠিযে দেয়া হবে। পরে সেখান থেকে যার যার কার্ড সংগ্রহ করে নেবেন। আর সংখ্যা যদি কম হয়, তাহলে তারা যখন দেশে আসবে। তখন তারা আমাদের কাছে আসলে অগ্রাধিকারের ভিত্তিতে তিন থেকে চার দিনের মধ্যে কাজ সম্পন্ন করে দেয়া হবে।

এছাড়া তিনি আরো বলেন, তারা দেশে আসার আগে আমাদের জানালে আমরা তাদেরকে বলবো যে, যে অনলাইলে আবেদন করেন। আমাদের যা কাগজপত্র লাগে সেগুলো দিতে বলব। সেগুলো দিলে ফাইল রেডি করে রাখব। পরে দেশে আসলে আঙুলের ছাপ বা চোখের আইরিশের প্রতিচ্ছবি দিয়ে ভোটার হতে পারবেন। এই প্রক্রিয়াটি তাদের ভোটার করে এনআইডি দেয়ার জন্য। ভোট দেয়ার জন্য নয়। ভোট কিভাবে, কখন কোন প্রক্রিয়া দেবে বা না দেবে সেটি কমিশন সিদ্ধান্ত নেবে।

ইসি সূত্র জানায়, সদ্য বিদায়ী কাজী রকীবউদ্দিন আহমদ নেতৃত্বাধীন কমিশন প্রবাসীদের ভোটার করার উদ্যোগ নিয়েছিল। গত বছরের ৫ অক্টোবর এনআইডি সাবেক মহাপরিচালককে এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় কার্যপত্র উপস্থাপনের জন্য বলা হয়েছিল। কিন্তু পরে তারা কাজটি সম্পন্ন করে যেতে পারেনি।

Post A Comment: