জয়পুরহাটের কালাই উপজেলায় পুলিশের বিরুদ্ধে আসামিকে না পেয়ে তার চাচা সাইদুর রহমানকে (৩৭) পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ পাওয়া গেছে। উপজেলার হারুঞ্জা গ্রামে সোমবার ভোর পাঁচটার দিকে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় দুই পুলিশ কর্মকর্তাসহ চারজনকে প্রত্যাহার করা হয়েছে। নিহত সাইদুর রহমান কালাই উপজেলার হারুঞ্জা গ্রামের আশরাফ আলীর ছেলে। নিহতের পরিবারের দাবি, পুলিশের মারপিটে সাইদুর রহমান মারা গেছেন। পরে পুলিশ লাশ কালাই উপজেলা হাসপাতালে নিয়ে যায়
Uncle-beat-the-uncle-4-police-withdrawal 

জয়পুরহাটের কালাই উপজেলায় পুলিশের বিরুদ্ধে আসামিকে না পেয়ে তার চাচা সাইদুর রহমানকে (৩৭) পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ পাওয়া গেছে। উপজেলার হারুঞ্জা গ্রামে সোমবার ভোর পাঁচটার দিকে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় দুই পুলিশ কর্মকর্তাসহ চারজনকে প্রত্যাহার করা হয়েছে। নিহত সাইদুর রহমান কালাই উপজেলার হারুঞ্জা গ্রামের আশরাফ আলীর ছেলে। নিহতের পরিবারের দাবি, পুলিশের মারপিটে সাইদুর রহমান মারা গেছেন। পরে পুলিশ লাশ কালাই উপজেলা হাসপাতালে নিয়ে যায়।


এ ঘটনায় নিহতের স্বজন ও গ্রামবাসীরা পুলিশকে অবরুদ্ধ করে রাখে এবং ভাংচুর চালায়। পরে অতিরিক্ত পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতির নিয়ন্ত্রণ নেয়।

তবে পেটানোর অভিযোগ অস্বীকার করে জয়পুরহাটের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার বেলায়েত হোসেন জানান, ভোরে কালাই থানা পুলিশ যৌন হয়রানির মামলায় শাপলা নামে এক আসামি গ্রেপ্তারে হারুঞ্জা গ্রামে যায়। সেখানে আসামির চাচা সাইদুর রহমানের সঙ্গে পুলিশের কথা কাটাকাটি ও ধ্বস্তাধস্তি হয়।

তিনি জানান, ধস্তাধস্তির এক পর্যায়ে উত্তেজনায় আাসামির চাচা সাইদুর রহমান স্ট্রোক (হৃদরোগ) করে মারা যান।

পরে ময়নাতদন্তের জন্য লাশ জয়পুরহাট জেলা আধুনিক হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় প্রাথমিকভাবে কালাই থানার দুই এসআইসহ চারজনকে প্রত্যাহার করা হয়েছে বলেও জানাস ওসি।

Post A Comment: