ভারতের রাজধানী দিল্লিতে দিনে দুপুরে এক নারীকে হত্যা করা হয়েছে। দেশটির সংবাদমাধ্যম এনডিটিভি বৃহস্পতিবার জানায়, বুধবার সকালে দিল্লির শালিমার বাগ এলাকায় ঘটনাটি ঘটে। নিহত নারীর নাম প্রিয়া মেহরা।
 

ভারতের রাজধানী দিল্লিতে দিনে দুপুরে এক নারীকে হত্যা করা হয়েছে। দেশটির সংবাদমাধ্যম এনডিটিভি বৃহস্পতিবার জানায়, বুধবার সকালে দিল্লির শালিমার বাগ এলাকায় ঘটনাটি ঘটে। নিহত নারীর নাম প্রিয়া মেহরা।


পুলিশের বরাত দিয়ে সংবাদমাধ্যমটি জানায়, সেদিন দিল্লির বাংলা সাহিব গুরুদ্বারা থেকে ওই পরিবার নিজেদের গাড়িতে ফিরছিলেন। রোহিণী জেলে নামক এলাকার কাছে আসতেই আরেকটি গাড়ি তাদের ওভারটেক করে সামনে এসে দাঁড়ায়। গাড়ি থেকে কয়েক জন লোক নেমে এসেই দম্পতিদের লক্ষ্য করে এলোপাথাড়ি গুলিবর্ষণ করে।

গাড়ির কাছে এসে দুষ্কৃতিকারীরা প্রিয়া মেহরা যে দিকে বসেছিলেন সেদিকের জানালার কাঁচ ভেঙ্গে ফেলে। এরপর খুব কাছ থেকে কয়েক রাউন্ড গুলি ছোড়ে। এতে ঘটনাস্থলেই মৃত্যু হয় প্রিয়া মেহরার।

কোনো রকমে প্রাণে বেঁচে যান প্রিয়া মেহরার স্বামী ও শিশু। প্রতিবেদনে বলা হয়, দিল্লির পাহাড়গঞ্জ এলাকায় একটি পানশালা চালান প্রিয়ার স্বামী পঙ্কজ মেহরা। প্রথম দিকে পঙ্কজ ব্যক্তিগত শত্রুতা থেকেই এই ঘটনা ঘটে বলে দাবি করেন।


পঙ্কজ জানান, ব্যবসার প্রয়োজনে এক ব্যক্তির কাছ থেকে তিনি ৪০ লাখ টাকা ধার নিয়েছিলেন। পরিশোধে দেরি হওয়ায় সেই পাওনাদার নানা হুমকি দিয়ে আসছিলেন। পঙ্কজ মেহরা দাবি করেন, এই কারণেই তাদের উপর হামলা চালানো হয়। দ্রুত গাড়িটি চালু করে স্থান ত্যাগ করায় তিনি এবং সন্তান প্রাণে বাঁচেন।

কিন্তু তদন্তে নেমে পুলিশ জানতে পারে অন্য ঘটনা। প্রিয়া মেহরার হত্যার পেছনে রয়েছেন খোদ পঙ্কজ।  আর তার মূল কারণ পরকীয়া।

পুলিশের তদন্ত করে জানতে পারে, প্রিয়াকে না জানিয়ে পঙ্কজ আরও একটি বিয়ে করেছিলেন। কিন্তু সেখানে সংসার করা তার জন্য সম্ভব হচ্ছিল না। এদিকে, ওই নারীর কাছ থেকে চাপও বাড়ছিল। পুলিশের ধারণা, কেলেঙ্কারি এড়াতেই প্রিয়াকে খুনের পরিকল্পনা করেন পঙ্কজ।

উল্লেখ্য, দিল্লিতে গত ৩ দিনে এই নিয়ে ৫টি খুনের ঘটনা ঘটল। এর আগে সোমবার দিল্লির উসমানপুরা ও কৃষ্ণানগর এলাকায় পৃথক দুটি ঘটনায় দুজন খুন হন। রোববার রাতেও শহরের ব্রহ্মপুরী এলাকায় দুজনকে গুলি করে হত্যা করা হয়।

Post A Comment: