মানুষে-মানুষে শত্রুতা এটা অনেক সময়ই ঘটে থাকে। জমা-জমি নিয়ে শত্রুতা হয়। কিন্তু পাঠশালা নিয়ে শত্রুতা! এমন নিষ্ঠুর ঘটনাই ঘটেছে টাঙ্গাইলের কালিহাতীতে। পাঠশালার শ্রেণিকক্ষ পুড়িয়ে শত্রুতা সাধন করেছে কোনো এক দুবর্ৃৃত্ত।
How-do-you-hate-this-school 

মানুষে-মানুষে শত্রুতা এটা অনেক সময়ই ঘটে থাকে। জমা-জমি নিয়ে শত্রুতা হয়। কিন্তু পাঠশালা নিয়ে শত্রুতা! এমন নিষ্ঠুর ঘটনাই ঘটেছে টাঙ্গাইলের কালিহাতীতে। পাঠশালার শ্রেণিকক্ষ পুড়িয়ে শত্রুতা সাধন করেছে কোনো এক দুবর্ৃৃত্ত।


জানা যায়, শনিবার দিবাগত রাতে জেলার কালিহাতী উপজেলার ১২১ নং বাঁশী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে আগুন দেয় দুর্বৃত্তরা। এতে বিদ্যালয়ের তিনটি শ্রেণিকক্ষ পুড়ে যায়। খবর পেয়ে স্থানীয়রা এসে প্রায় আধঘণ্টা চেষ্টা চালিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনেন।

বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির সদস্য ও স্থানীয়রা জানান, বিদ্যালয়ের ১৬ শতাংশ জায়গার মধ্যে ৯ শতাংশ জায়গা একই এলাকার জুলহাস দীর্ঘদিন ধরে তার নিজের বলে দাবি করে আসছেন। জমি সংক্রান্ত্র বিরোধের জের ধরেই জুলহাস বিদ্যালয়ে আগুন লাগিয়েছেন বলে মনে করছেন তারা।

বিদ্যালয়ের শ্রেণিকক্ষে আগুন দেয়ার ঘটনায় শিক্ষার্থীদের মাঝে চরম আতঙ্ক বিরাজ করছে। ভয়ে বিদ্যালয়ে আসেনি বেশিরভাগ শিক্ষার্থী। 

বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা জায়েদা খাতুন  জানান, বিদ্যালয়ের ৩টি শ্রেণিকক্ষ আগুনে পুড়ে গেছে। বিকল্প কোনো শ্রেণিকক্ষ না থাকার কারণে শিক্ষার্থীদের পাঠদান চরমভাবে ব্যাহত হয়েছে।

তিনি আরো জানান, এ ঘটনায় বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা কান্নাকাটি করে বাড়িতে চলে গেছে।

বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি আব্দুল জলিল বলেন, দীর্ঘদিন যাবৎ বিদ্যালয়ের ৯ শতাংশ জায়গা একই এলাকার জুলহাস জোরপূর্বকভাবে দখল নেয়ার চেষ্টা চালাচ্ছে। এর আগেও তিনি বিদ্যালয়ের সাইনবোর্ড ভাঙচুর করেছেন। প্রায় ৪ বছর আগে জুলহাস বিদ্যালয় মাঠে জোরপূর্বক একটি ঘর উঠিয়েছিলেন। পরে এলাকাবাসী ঘরটি ভেঙে দেয়। এ নিয়ে জুলহাস আরো ক্ষিপ্ত হয়ে বিভিন্নভাবে বিদ্যালয়ের ক্ষতি করে আসছে। এর জের ধরেই জুলহাস বিদ্যালয়ে আগুন দিয়েছে। তিনি আরো বলেন, এ ঘটনায় কালিহাতী থানায় মামলা দায়ের করার প্রস্তুতি নিচ্ছি। 

উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার শামসুল হক জানান, বিদ্যালয়ের আগুন দেয়ার ঘটনাটি আমি শুনেছি। এ ধরনের ঘটনা অত্যন্ত দুঃখজনক। ঘটনার সাথে জড়িতদের কঠোর শাস্তি দাবি করছি।

এ ব্যাপারে কালিহাতী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মীর মোশারফ হোসেন বলেন, ‘এখনো কেউ থানায় অভিযোগ করেনি। অভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

Post A Comment: