আধিপত্য বিস্তার নিয়ে লক্ষ্মীপুরের কমলনগরের তোরাবগঞ্জ বাজারে আওয়ামী লীগ ও যুবলীগের সংঘর্ষে ১০ নেতাকর্মী আহত হয়েছেন।
10-injured-in-AL-Juba-League-collision-in-Lakshmipur 

আধিপত্য বিস্তার নিয়ে লক্ষ্মীপুরের কমলনগরের তোরাবগঞ্জ বাজারে আওয়ামী লীগ ও যুবলীগের সংঘর্ষে ১০ নেতাকর্মী আহত হয়েছেন।


সোমবার রাত ৯টার দিকে এ সংঘর্ষ হয়। ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি নুরুল আমিন ও চরলরেন্স যুবলীগের সভাপতি ইছমাইল হোসেন সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ হয়েছে বলে জানা গেছে।

আহতদের মধ্যে যুবলীগ কর্মী মাইন উদ্দিন, সুমন,চৌধুরী ও সবুজ হোসেনকে সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এছাড়া তোফায়েল আহম্মদ, আবুল কাশেম ও সিরাজ উদ্দিনকে কমলনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়।

পুলিশ ও দলীয় নেতাকর্মীরা জানান, দীর্ঘদিন ধরে আধিপত্য বিস্তার নিয়ে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও চরলরেন্স ইউপি চেয়ারম্যান নুরুল আমিন মাস্টার এবং চরলরেন্স যুবলীগের সভাপতি ও একই ইউনিয়নের ইউপি সদস্য ইছমাইল হোসেনের মধ্যে বিরোধ চলে আসছে। এ বিরোধ নিয়ে রাত ৯টার দিকে তোরাবগঞ্জ বাজারে দুইপক্ষের সমর্থকদের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়। এসময় উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি নুরুল আমিন মাস্টারের ছেলে নিজাম উদ্দিন সোহেল ও ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি  ইছমাইল হোসেনকে গালমন্দ ও মারধর করার চেষ্টা করে। এর জের ধরে নুরুল আমিন মাস্টার ও ইছমাইল হোসেন সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ বেঁধে যায়।

তবে এ ঘটনায় উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও চরলরেন্স ইউপি চেয়ারম্যান নুরুল আমিন মাস্টার এবং চরলরেন্স ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি ইছমাইল হোসেন একে অপরকে দায়ী করছেন।

কমলনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আকুল চন্দ্র বিশ্বাস ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেন। তিনি বলেন, পরিস্থিতি পুলিশের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

Post A Comment: