উত্তর কোরিয়ার কাছাকাছি এলাকায় সোমবার যৌথ নৌ মহড়া করেছে চীন ও রাশিয়া। চলতি সপ্তাহে জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের বার্ষিক অধিবেশন শুরুর আগ মুহূর্তে এই মহড়া দিল দুই সুপার পাওয়ার।
China-Russia-study-on-U-Koreas-body 

উত্তর কোরিয়ার কাছাকাছি এলাকায় সোমবার যৌথ নৌ মহড়া করেছে চীন ও রাশিয়া। চলতি সপ্তাহে জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের বার্ষিক অধিবেশন শুরুর আগ মুহূর্তে এই মহড়া দিল দুই সুপার পাওয়ার।


জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের অধিবেশনে পরমাণু কর্মসূচি ও ক্ষেপণাস্ত্রের পরীক্ষার জন্য উত্তর কোরিয়ার বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়ার চাপ আসতে পারে। খবর: রয়টার্সের।

গত শুক্রবার আরেকটি ক্ষেপণাস্ত্রের পরীক্ষা চালায় উত্তর কোরিয়া, যেটি জাপানের ওপর দিয়ে গিয়ে সাগরে পড়ে। গত তিন সপ্তাহের মধ্যে এটা হচ্ছে দেশটির দ্বিতীয় পরীক্ষা এবং চলতি বছরের ষষ্ঠ।

এছাড়া আন্তর্জাতিক চাপের প্রতি বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে গত ৩ সেপ্টেম্বর শক্তিশালী হাইড্রোজেন বোমার পরীক্ষা চালিয়েছিল উত্তর কোরিয়া। এ নিয়ে যুক্তরাষ্ট্র ও তার ঘনিষ্ঠ মিত্রদেশগুলোতে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে।

যুক্তরাষ্ট্র বরাবর চীন ও রাশিয়াকে উত্তর কোরিয়া ইস্যুতে সুষ্ঠু পদক্ষেপ নেয়ার আহ্বান জানিয়ে আসছে। আন্তর্জাতিক বিশ্লেষকদের ধারণা, উত্তর কোরিয়ার পেছনে কলকাঠি নাড়ছে চীন ও রাশিয়া। সাম্প্রতিক নৌ মহড়াকে তার প্রমাণ হিসেবেই দেখা হচ্ছে।

সিনহুয়া সংবাদ সংস্থার খবরে বলা হয়, চীন ও রাশিয়ার যৌথ নৌ মহড়াটি পরিচালিত হয়েছে রাশিয়ার পূর্বাঞ্চলীয় বন্দর ভ্লাদিভস্তকের কাছাকাছি পিটার দ্য গ্রেট উপসাগরে।

জায়গাটি রাশিয়া ও উত্তর কোরিয়া সীমান্ত থেকে বেশি দূরে নয় এবং এটা জাপানের উত্তরে অখটাস্ক সাগরের দক্ষিণাংশে অবস্থিত।

এ বছর চীন ও রাশিয়ার মধ্যকার যৌথ নৌ মহড়ার দ্বিতীয় পর্ব ছিল এটা। প্রথম পর্বটি চলতি বছরের জুলাই মাসে বাল্টিক সাগরে অনুষ্ঠিত হয়েছিল।

তবে বর্তমান মহড়াটি উত্তর কোরিয়া নিয়ে সাম্প্রতিক উত্তেজনার পরিপ্রেক্ষিতে পরিচালিত হয়েছে কিনা সেটা নিয়ে বিস্তারিত বলা হয়নি।

উত্তর কোরিয়া সঙ্কট নিয়ে চীন ও রাশিয়ার অবস্থান প্রায় একই। দুই সুপার পাওয়ারই আলোচনার মাধ্যমে শান্তিপূর্ণ সমাধানের পক্ষে মত দিয়ে আসছে।

Post A Comment: