দুর্নীতি-স্বজনপ্রীতি, গুম-খুন ছাড়া কোনো কিছুতেই সরকার দক্ষতার পরিচয় দিতে পারেনি বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদু। ০৩ আগস্ট বৃহস্পতিবার দুপুরে জাতীয় প্রেস ক্লাবের ভিআইপি লাউঞ্জে ‘দেশ বাঁচাও মানুষ বাঁচা ‘ আন্দোলনের এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান বরকত উল্লাহ বুলু এবং আয়োজক সংগঠনের কেন্দ্রীয় সভাপতি কে এম রকিবুল ইসলাম রিপনসহ সকল রাজবন্দিদের মুক্তির দাবিতে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপির এ আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়।

 

দুর্নীতি-স্বজনপ্রীতি, গুম-খুন ছাড়া কোনো কিছুতেই সরকার দক্ষতার পরিচয় দিতে পারেনি বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদু।

০৩ আগস্ট বৃহস্পতিবার দুপুরে জাতীয় প্রেস ক্লাবের ভিআইপি লাউঞ্জে ‘দেশ বাঁচাও মানুষ বাঁচা ‘ আন্দোলনের এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান বরকত উল্লাহ বুলু এবং আয়োজক সংগঠনের কেন্দ্রীয় সভাপতি কে এম রকিবুল ইসলাম রিপনসহ সকল রাজবন্দিদের মুক্তির দাবিতে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপির এ আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়।

তিনি বলেন, হাজীদের হজ করতে দেয়ার ক্ষমতা যে সরকারের নেই তারা আবার সুষ্ঠু নির্বাচনের কথা বলে। বিমানমন্ত্রী বলেছেন, এবার নাকি ৪০ হাজার হজযাত্রী হজে যেতে পারবেন না। দুর্নীতি, স্বজনপ্রীতি, গুম, খুন ছাড়া কোনো কিছুতেই তারা দক্ষতার পরিচয় দিতে পারেনি। এত বড় দুর্নীতিবাজ সরকার দেশে আগে কখনও আসেনি।

খালেদা জিয়া এবং তার দল রাস্তায় নামলে আলোচনার মাধ্যমে আপনারা (আওয়ামী লীগ) যে ছাড় পেতেন তা আর পাবেন না বলে হুশিয়ারী দিয়ে দুদু বলেন, দেশের চলমান সংকট নিয়ে আমরা বার বার আলোচনার কথা বলছি। সরকার উদ্যোগ নিলে ভালো। তা না হলে কীভাবে আলোচনা করতে হয় বিএনপি ভালো করেই জানে। অতীতে এরশাদ সাহেব দেখেছেন।

দুদু আরও বলেন, আজকে দেশে আইন-শৃঙ্খলা বলতে কিছু নেই। ছাগলের ছবি ফেসবুকে প্রকাশ করলে মন্ত্রীর বদনাম হয় এবং সাংবাদিকদের জেলে যেতে হয়। আজকে সরকারই তো ছাগলের মত আচরণ করছে। ৫৭ ধারা পুলিশ আবার মেকাআপ করছে ওপরের নির্দেশ ছাড়া মামলা যেন না নেয়া হয়।

বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান দুদু বলেন, যে আইন আছে সেটা বাতিল করেন। সাংবাদিকরা কী এতই বোধ জ্ঞানহীন যে, কোনটা লিখতে হবে কোনটা লিখতে হবে না -তা তারা জানেন না। আইন করছেন বলে শুধু তারা (সাংবাদিক) নয়, রাজনৈতিক নেতাদেরও অপদস্থ করছেন। তাই অবিলম্বে এই ৫৭ ধারা বাতিল করুন।

নির্বাচন প্রসঙ্গে ছাত্রদলের সাবেক এই সভাপতি বলেন, স্বপ্ন যতই দেখেন তা আর বাস্তবায়ন হবে না। কেননা বিএনপি এবার নির্বাচনে যাবে, সহায়ক সরকার প্রতিষ্ঠা হবে এবং ক্ষমতায়ও আসবে। আর সেই সরকারের প্রধানমন্ত্রী হবেন খালেদা জিয়া।

আলোচনা সভায় আয়োজক সংগঠনের সভাপতি মো. রাসেল খাঁনের সভাপতিত্বে বিএনপির চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আব্দুস সালাম, ন্যাপের মহাসচিব গোলাম মোস্তফা ভূইয়া, এনডিপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মঞ্জুর হোসেন ঈশা, কল্যাণ পার্টির ভাইস-চেয়ারম্যান সাইদুর রহমান তামান্না প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

Post A Comment: