গত কয়েক দিনে ধারাবাহিকভাবে নদ-নদীর পানি বৃদ্ধির ফলে ফরিদপুরের তিনটি উপজেলায় লক্ষাধিক মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। এছাড়া ওই সকল এলাকায় দেখা দিয়েছে নদী ভাঙন।
 

গত কয়েক দিনে ধারাবাহিকভাবে নদ-নদীর পানি বৃদ্ধির ফলে ফরিদপুরের তিনটি উপজেলায় লক্ষাধিক মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। এছাড়া ওই সকল এলাকায় দেখা দিয়েছে নদী ভাঙন।


বৃহস্পতিবার ফরিদপুরের জেলা প্রশাসক উম্মে সালমা তানজিয়া ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে সরকারি সহায়তা দেয়া শুরু করেছেন।

ফরিদপুর জেলা ত্রাণ কর্মকর্তা মো. সাহিদুর রহমান জানান, জেলার তিনটি উপজেলায় চরভদ্রাসন, ফরিদপুর সদর এবং সদরপুর পানিবন্দি ও নদী ভাঙন কবলিতদের এই পর্যন্ত সরকারি সহায়তা হিসেবে ৪০ মে.টন চাল ও ৯০ হাজার টাকা দেয়া হয়েছে।

তিনি বলেন, জেলা প্রশাসকের নির্দেশে এই সহায়তা দেয়া অব্যাহত থাকবে।

ফরিদপুরের চরভদ্রাসন উপজেলায় বৃহস্পতিবার সকাল সাতটার দিকে ভাঙনকবলিত বালিয়া ডাঙ্গী ও ফাজেল খার ডাঙ্গী গ্রামের ক্ষতিগ্রস্তদের সরকারি সহায়তা প্রদান করেন জেলা প্রশাসক উম্মে সালমা তানজিয়া। এসময় তিনি চাল ও শুকনা খাবার বিতরণ করেন।

এ সময় ছিলেন- অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক এরাদুল হক, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. সগীর হোসেন, উপজেলা চেয়ারম্যান এজিএম বাদল আমিন, জেলা নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট পারভেজ মল্লিক, উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) দীপ্তিময়ী জামান প্রমুখ।

ফরিদপুরের জেলা প্রশাসক উম্মে সালমা তানজিয়া বলেন, যেকোনো দুর্যোগ মোকাবেলায় আমাদের সকল ধরনের প্রস্তুতি রয়েছে। তিনি বলেন, প্রত্যেক উপজেলা প্রশাসন ও স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের নির্দেশ দেয়া আছে সর্বদা সতর্ক থাকতে।

গত ২৪ ঘণ্টায় ফরিদপুরের পদ্মার পানি ১৬ সে.মিটার বৃদ্ধি পেয়ে এখন (বৃহস্পতিবার) ৯২ সে.মিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

Post A Comment: