কুষ্টিয়ার ছেঁউড়িয়ায় মোবাইল চুরির অপবাদে আমগাছে বেঁধে এক শিশুকে অমানুষিকভাবে পিটিয়েছে স্থানীয় প্রভাবশালীরা। বুধবার বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে শিশুটির ওপর এ নির্মম নির্যাতন চালানো হয়।


    কুষ্টিয়ার ছেঁউড়িয়ায় মোবাইল চুরির অপবাদে আমগাছে বেঁধে এক শিশুকে অমানুষিকভাবে পিটিয়েছে স্থানীয় প্রভাবশালীরা। বুধবার বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে শিশুটির ওপর এ নির্মম নির্যাতন চালানো হয়।


প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, ৪-৫ দিন আগে কুষ্টিয়ার কুমারখালী উপজেলার ছেঁউড়িয়ার চরমণ্ডলপাড়া এলাকার রূপালী নামে এক নারীর মোবাইল হারিয়ে যায়। ওই ঘটনায় তারা একই এলাকার ৭ বছরের এতিম শিশু জুয়েলকে সন্দেহ করে। বুধবার বিকেলে একই এলাকার প্রভাবশালী তানজিল ও মীর আক্কাস ওরফে মিরু তাদের বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে তানজিলের শ্বশুর বাড়ির সামনে আমগাছে বেঁধে বেধড়ক মারপিট করে। সন্ধ্যায় ওই শিশুকে গুরুতর আহতাবস্থায় কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এ সময় শিশুটি চিৎকার করে বলে, ‘ও কাকা, আমি জানি না। কিচ্ছু জানি না। আমি মোবাইল নিইনি, ও আল্লাহ আমারে বাঁচাও।’

শিশুটিকে মারধর করতে করতে যুবক বলতে থাকেন, ‘সত্যি করি ক, মোবাইল কনে?’ শিশুটি যতবার ‘জানি না’ বলে, ততবার তার গায়ে জোরে জোরে লাটির বাড়ি পড়ে।

এদিকে শিশুটির ভাই রুবেল খান বাদী হয়ে তিনজনকে আসামি করে কুমারখালী থানায় মামলা করেছেন। এর মধ্যে তানজিল ও তার শাশুড়ি রোকেয়াকে গ্রেফতার করা হয়েছে। মীর আক্কাস ওরফে মিরুকে গ্রেফতারে অভিযান চলছে বলে জানান কুমারখালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুল খালেক।

Post A Comment: