ক্ষমতাসীন দল বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল-আলম হানিফ বলেছেন, প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলামের মুখপাত্র হিসেবে কাজ করছেন।
 

ক্ষমতাসীন দল বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল-আলম হানিফ বলেছেন, প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলামের মুখপাত্র হিসেবে কাজ করছেন।


বুধবার দুপুরে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪২তম শাহাদাত বার্ষিকী উপলক্ষ্যে আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

বক্তৃতায় হানিফ বলেন, ‘‘বিএনপি মহসচিব মির্জা ফখরুল সংবাদ সম্মেলন করে প্রধান বিচারপতির মুখপাত্রের দায়িত্ব পালন করছেন। বিএনপির আচরণে অবাক হতে হয়। তারা কি বিচারপতির  মুখপাত্রের দায়িত্ব নিয়েছেন যে বিচারালয়ে কী হচ্ছে সেটা নিয়ে সংবাদ সম্মেলন করতে হচ্ছে!’।

তিনি বলেন, বিএনপি সবসময় ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে ক্ষমতায় যেতে চায়। এবার বিচারালয়ের ঘাড়ে চড়ে ষড়যন্ত্র করছে’।

আওয়ামী লীগ নেতা হানিফ আরও বলেন, ‘ষোড়শ সংশোধনীর রায়ের পর্যবেক্ষণে বলা হয়েছে, জিয়া ছিলেন অবৈধ ক্ষমতা দখলকারী সামরিক শাসক। মির্জা ফখরুলরা রায় মেনে নিয়ে স্বীকার করে নিয়েছেন যে তারা অবৈধ ক্ষমতা দখলকারী দ্বারা প্রতিষ্ঠিত রাজনৈতিক দলের নেতা’।

অবৈধ ক্ষমতা যারা দখলকারী দ্বারা সৃষ্ট দলের সকল কর্মকান্ড অবৈধ হিসেবে বিবেচিত হয়। সেই হিসেবে বিএনপিও আজ অবৈধ দল বলে হানিফ মন্তব্য করেন।

ফখরুলকে উদ্দেশ্য করে হানিফ বলেন, ‘এই অবৈধ দলের নেতা হিসেবে জাতিকে নসিহত করার কোন সুযোগ নেই । এর প্রয়োজনও নেই’।

হানিফ বলেন, সাম্প্রতিককালে বিচারালয়ে বসে পরিষ্কারভাবে ইঙ্গিত করা হয়েছে পাকিস্তানের দিকে। ‘আমরা পরিষ্কারভাবে জানিয়ে দিয়েছি যে বাংলাদেশ পাকিস্তান নয়। বাংলাদেশে বসে যদি কেউ পাকিস্তানের স্বপ্ন দেখে সেটা দু:স্বপ্ন হিসেবেই থাকবে’।

বিচার বিভাগের প্রতি শ্রদ্ধা আছে জানিয়ে হানিফ বলেন, আমরা সব সময় বিচার বিভাগ স্বাধীনভাবে চলুক সেটা চাই। কিন্তু বিচার বিভাগের স্বাধীনতার নামে কোন অশুভ চিন্তা করলে আওয়ামী লীগ তা বরদাশত করবেনা বলেও মন্তব্য করেন হানিফ’।

অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মিসবাহ উদ্দিন সিরাজ, সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি বদর উদ্দিন আহমদ কামরান, জেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি মাসুক উদ্দিন,সাধারণ সম্পাদক শফিকুর রহমান চৌধুরী,বাংলাদেশ মেডিকেল এসোসিয়েশনের মহাসচিব এহতেশামুল হক দুলাল ও সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ ডা. মোর্শেদ আহমদ চৌধুরী প্রমুখ।

Post A Comment: