সাদামাটা শ্রমিকের বেশ ধরে যে লোকটা ঢালাইয়ের কাজের আশে ঘুর ঘুর করছিলো, ঠিকাদার কিংবা তার চ্যালারা ঘুণাক্ষরেও টের পাননি ইনিই চুয়াডাঙ্গা শহরের মেয়র ওবাইদুর রহমান চৌধুরী জিপু। ঠিকাদারদের দূর্নীতি রুখতে নিজেই নেমে এসেছেন রাস্তায়, ধরেছেন ছদ্মবেশ। এ যেন খলিফা হারুনুর রশীদের গল্পকেও হার মানায়।
Chowdhanga-Mayors-masks-to-prevent-corruption 

সাদামাটা শ্রমিকের বেশ ধরে যে লোকটা ঢালাইয়ের কাজের আশে ঘুর ঘুর করছিলো, ঠিকাদার কিংবা তার চ্যালারা ঘুণাক্ষরেও টের পাননি ইনিই চুয়াডাঙ্গা শহরের মেয়র ওবাইদুর রহমান চৌধুরী জিপু। ঠিকাদারদের দূর্নীতি রুখতে নিজেই নেমে এসেছেন রাস্তায়, ধরেছেন ছদ্মবেশ। এ যেন খলিফা হারুনুর রশীদের গল্পকেও হার মানায়।


একদিন দুদিন নয়, টানা একসপ্তাহ শহরের রাস্তায় রাস্তায় ঘুরেছেন মেয়র জিপু। পরনে ছিলো লুঙ্গি আর পাতলা হাফহাতা শার্ট, মাথায় টুপি আর গলায় গামছা। কখনো রিকশা চালিয়েছেন, কখনো শ্রমিক সেজে কাজ করেছেন ঠিকাদারদের সাথে।

আর এ ছদ্মবেশ ধারণের মূল কারণ হিসেবে জিপু জানান, তার শহরে ২৫ কোটি টাকার উন্নয়নের প্রকল্প শুরু হয়েছে সম্প্রতি। কিন্তু ঠিকাদারদের দিয়ে কাজ করাতে গিয়ে বারবার তিনি ঠকেছেন, ঠকেছে শহরের মানুষ। উন্নয়ন কাজ করাতে গিয়ে ঠিকাদাররাই দূর্নীতি করে টাকা খেয়ে ফেলে। কাজ যতটুকু হয় তার মান খুবই জঘন্য। অল্প দিনের মধ্যেই আবার সংষ্কারের কাজ শুরু করতে হয়। এমন পরিস্থিতি মোকাবেলা করতে তিনি এবার নিজেই মাঠে নেমেছেন চুরি ঠেকাতে।

মেয়র ওবাইদুর রহমান চৌধুরী জিপু  বলেন, ‘প্রথম শ্রেণির পৌরসভায় উন্নতি হওয়ার পর সবচেয়ে বড় উন্নয়ন প্রকল্পের কাজ চলছে চুয়াডাঙ্গা পৌরসভায়। ইউজিপি-৩ প্রকল্পের এই উন্নয়ন কাজের মধ্যে রয়েছে পৌর এলাকার ৯টি ওয়ার্ডের রাস্তাঘাট, ড্রেনেজ ব্যবস্থা ও সড়ক বাতি উন্নয়নের কাজ, যা গত ২৫ জুলাই থেকে শুরু হয়েছে। সব মিলিয়ে প্রায় ২৫ কোটি টাকার বরাদ্দ রয়েছে এসব কাজের জন্য।’

মেয়র জিপু বলেন, ‘কাজ শুরুর পর ঠিকাদাররা যাতে কোনোভাবেই কাজে অনিয়ম ও দুর্নীতি করতে না পারে তার জন্যই ছদ্মবেশে ঘুরছি। কখনো কৃষক, কখনো রিকশা চালক ও কখনো সাধারণ শ্রমিকের বেশে হাজির হয়েছি সাইটে। কাছ থেকে দেখার জন্য যে কোথায় কে কীভাবে চুরি করে।’

মেয়রের এমন উদ্যোগে ভিষন রকম আলোড়ন উঠেছে তার এলাকায়। এলাকাবাসী বলছেন, মেয়র জিপুর মতন মানুষের হাতে শহরের উন্নয়নের দায়ভার অনেকটা আশীর্বাদ হয়েছে তাদের জন্য। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও যথেষ্ট আলোড়ন তুলেছে ঘটনাটি। অনেকেই বলেছেন চুয়াডাঙ্গার মেয়রের কাছ থেকে জাতীয় পর্যায়ের নেতা মন্ত্রীদের অনেক কিছু শেখার আছে।

Post A Comment: