খেলাধুলা করা হয় শরীর ও মন ঠিক রাখার জন্য। কিন্তু এই ক্রীড়াঙ্গনই মাঝে মাঝে কিছু মানুষের জন্য কলঙ্কিত হয়ে যায়। সম্প্রতি দিল্লীর এক ধর্ষণের ঘটনায় ভারতীয় ক্রীড়াঙ্গনে সমালোচনার ঝড় উঠেছে। এক নাবালিকা নারী কাবাডি খেলোয়াড়কে ধর্ষণের অভিযোগে সাবেক এক কুস্তিগীরকে গ্রেফতার করেছে দিল্লির পুলিশ। পুলিশের জেরার এক পর্যায়ে ১৬ বছর বয়সী জাতীয় পর্যায়ের ওই কাবাডি খেলোয়াড়কে ধর্ষণের কথা স্বীকার করেছেন দিল্লি জাতীয় স্তরের কুস্তিগীর নরেশ দাহিয়া।



খেলাধুলা করা হয় শরীর ও মন ঠিক রাখার জন্য। কিন্তু এই ক্রীড়াঙ্গনই মাঝে মাঝে কিছু মানুষের জন্য কলঙ্কিত হয়ে যায়। সম্প্রতি দিল্লীর এক ধর্ষণের ঘটনায় ভারতীয় ক্রীড়াঙ্গনে সমালোচনার ঝড় উঠেছে।

এক নাবালিকা নারী কাবাডি খেলোয়াড়কে ধর্ষণের অভিযোগে সাবেক এক কুস্তিগীরকে গ্রেফতার করেছে দিল্লির পুলিশ। পুলিশের জেরার এক পর্যায়ে ১৬ বছর বয়সী জাতীয় পর্যায়ের ওই কাবাডি খেলোয়াড়কে ধর্ষণের কথা স্বীকার করেছেন দিল্লি জাতীয় স্তরের কুস্তিগীর নরেশ দাহিয়া।

অভিযুক্ত নরেশ দায়িয়া। ছবি: সংগৃহীত
মঙ্গলবার দিল্লির ১৬ বছরের এক নারী কাবাডি খেলোয়াড় পুলিশের কাছে অভিযোগ করেন। লিখিত সেই অভিযোগে বলা হয়, নরেশ দাহিয়া নামে এক কুস্তিগীর তাকে ৯ জুলাই বাড়িতে তুলে নিয়ে গিয়ে ধর্ষণ করেছে। অভিযোগের ভিত্তিতে মঙ্গলবার গভীর রাতে দিল্লির মডেল টাউন পুলিশ ৪৬ বছরের সাবেক জাতীয় স্তরের ওই কুস্তিগীরকে গ্রেফতার করে। কেরালা গ্রামের বাসিন্দা নরেশ ছত্রাসাল স্টেডিয়ামের প্রশিক্ষিত কুস্তিগীর এবং কুস্তি প্রশিক্ষকও।

নাবালিকা কাবাডি খেলোয়াড়ের অভিযোগ, সপ্তাহ দুয়েক আগে ছত্রাসাল স্টেডিয়ামে ৩৫ থেকে ৪০ বছরের এক ব্যক্তির সঙ্গে তার পরিচয় হয়। যে তাকে ৯ জুলাই গাড়ি করে রোহিনীতে নিজের ফ্ল্যাটে নিয়ে যায় এবং সেখানে কিছু বন্ধুর সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দেন। এরপর তাকে পানীয় খাইয়ে অচেতন করে ফেলেন। তারপর তাকে ধর্ষণ করা হয়।

এই ঘটনার পর মডেল টাউন পুলিশের দ্বারস্থ হয় ওই কাবাডি খেলোয়াড়। অভিযুক্তের বিরুদ্ধে ভারতীয় দণ্ডবিধির ৩৭৬ ধারা এবং নারী নাবালিকা হওয়ায় পকসো আইনে (প্রোটেকশন অব চিলড্রেন ফ্রম সেক্সুয়াল অফেন্স আইন) মামলা দায়ের করা হয়েছে।

Post A Comment: