প্রযুক্তি বিশ্বে গত বছরের শেষের দিক থেকেই সমালোচনার মুখে আছে অ্যাপভিত্তিক ট্যাক্সি সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান উবার। বাংলাদেশসহ বিশ্বের যে কয়টি দেশে নিজেদের সেবা শুরু করেছে প্রতিষ্ঠানটি, প্রায় সব দেশেই পথে পথে হোঁচট খেতে হয়েছে এই প্রতিষ্ঠানটিকে।



প্রযুক্তি বিশ্বে গত বছরের শেষের দিক থেকেই সমালোচনার মুখে আছে অ্যাপভিত্তিক ট্যাক্সি সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান উবার। বাংলাদেশসহ বিশ্বের যে কয়টি দেশে নিজেদের সেবা শুরু করেছে প্রতিষ্ঠানটি, প্রায় সব দেশেই পথে পথে হোঁচট খেতে হয়েছে এই প্রতিষ্ঠানটিকে।

এছাড়া চলতি বছরের জুনে বিনিয়োগকারীদের কঠিন চাপের মুখে সরে যেতে বাধ্য হন উবারের সহপ্রতিষ্ঠাতা এবং প্রধান নির্বাহী অফিসার (সিইও) ট্রাভিস কালানিক। এরপর থেকেই ব্যাপক চ্যালেঞ্জের মুখে রয়েছে ট্যাক্সি সেবাদাতা এই প্রতিষ্ঠানটি।
এই চ্যালেঞ্জটি ক্রমশ আরও বেশি বড় হচ্ছে উবারের দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায় সবচেয়ে বড় প্রতিদ্বন্দ্বী অ্যাপভিত্তিক ট্যাক্সি সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান গ্র্যাব এর কারণে। 

কারণ গ্র্যাব নিজস্ব তহবিল বাড়ানোর পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে। এ লক্ষ্যে প্রতিষ্ঠানটি তার তহবিলে আরো ২০০ কোটি ডলার যোগ করার জন্য জাপানের সফটব্যাংক গ্রুপ এবং চীনের শীর্ষ পরিবহন কোম্পানি দিদি চক্সিংয়ের কাছ থেকে অর্থ গ্রহণ করছে। 

তবে সম্প্রতি ওয়াল স্ট্রিট জার্নালে প্রকাশিত সংবাদের বরাত দিয়ে বার্তা সংস্থা রয়টার্স ইঙ্গিত করেছে, এ চুক্তি ৫০০ কোটি ডলারে গিয়ে ঠেকতে পারে। 

উল্লেখ্য, গ্র্যাব দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার সাতটি দেশের ৫৫টি শহরে পরিবহন সেবা দিয়ে থাকে।

Post A Comment: