সময় বাকি নেই আর এক বছরও। ইতোমধ্যে শুরু হয়ে গিয়েছে দিন গণনা। ২০১৮ রাশিয়া বিশ্বকাপকে কেন্দ্র করে নিজেদের গুছিয়ে নিচ্ছে দেশটি। বিশ্ব দরবারে নিজেদের শ্রেষ্ঠত্ব তুলে ধরতে ঐতিহ্যের সঙ্গে অভিনব সব জিনিস উপস্থাপনের চেষ্টায় রয়েছে রাশিয়ানরা।

রাশিয়ার এক কৃষকের তৈরি খড়ের স্টেডিয়াম।

সময় বাকি নেই আর এক বছরও। ইতোমধ্যে শুরু হয়ে গিয়েছে দিন গণনা। ২০১৮ রাশিয়া বিশ্বকাপকে কেন্দ্র করে নিজেদের গুছিয়ে নিচ্ছে দেশটি। বিশ্ব দরবারে নিজেদের শ্রেষ্ঠত্ব তুলে ধরতে ঐতিহ্যের সঙ্গে অভিনব সব জিনিস উপস্থাপনের চেষ্টায় রয়েছে রাশিয়ানরা।

খড়ের স্টেডিয়ামের প্রবেশ পথ।

তেমনই এক নিদর্শন খড়ের স্টেডিয়াম! ফুটবল বিশ্বকাপের পর্দা ওঠার আগেই রাশিয়ান এক কৃষক খড় দিয়ে ফুটবল স্টেডিয়াম তৈরি করে সবার নজর কেড়েছেন।

খেলা শুরুর আগে বিশ্রামে খেলোয়াড়রা। 

রাশিয়ান ওই কৃষকের নাম রোমান পুনোমারায়ুভ। সেন্ট পিটার্সবুর্গ স্টেডিয়ামের রেপ্লিকাই খড় দিয়ে বানিয়েছেন তিনি। আগামী বছরের বিশ্বকাপে এই ভেন্যুটিতে সেমিফাইনালসহ মোট সাতটি ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে।

দর্শকদের বসার জন্য রয়েছে ৩০০র বেশি আসন ব্যবস্থা।

বিশ্বকাপের জন্য উপযোগী করে তুলতে এই ভেন্যুর জন্য ৫৭৩ মিলিয়ন পাউন্ড খরচ করেছে রাশিয়া। বিশ্বকাপ আয়োজনের মোট খরচ ও অসংগতিকে সবার সামনে তুলে ধরতেই রাশিয়ান কৃষক পুনোমারায়ুভের এমন প্রচেষ্টা।

স্থানীয় দলগুলো নিয়ে আয়োজিত টুর্নামেন্ট উপভোগ করছে দর্শকরা।

খড় দিয়ে তৈরি নজরকাড়া সেই স্টেডিয়াম দর্শকদের খেলা উপভোগ করার জন্য রয়েছে ৩০০টি আসনের ব্যবস্থাও। গত সপ্তাহে স্থানীয় কয়েকটি দল খড়ের তৈরি স্টেডিয়ামে একটি টুর্নামেন্টে অংশ নিয়েছে।

স্টেডিয়াম খড়ের হলেও খেলা ছিল জমজমাট।

বিশ্বের সবচেয়ে জমজমাট আসরের আগে এমন স্টেডিয়াম তৈরি নিয়ে এক সাক্ষাতকারে পুনোমারায়ুভ বলেন, ‘বিশ্বকাপের আগে মানুষের উত্তেজনা এবং খেলাধুলার পরিবেশ বিরাজ করতে দেখাটা আমার কাছে দারুণ।’


আসল সেন্ট পিটার্সবুর্গ স্টেডিয়ামে গত মাসে কনফেডারেসন্স কাপের ফাইনাল ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয়েছে। পুনোমারায়ুভের তৈরি রেপ্লিকা বিশ্বকাপ ভেন্যু নির্মাণে খরচ, দুর্নীতি, বিলম্ব এবং শ্রমিকদের মৃত্যুকে তুলে ধরবে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

Post A Comment: