এবার ফেসবুকে ভিডিও আপলোড করে বাবার বিরুদ্ধে অমানুষিক নির্যাতনের কথা জানিয়েছেন এক বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী। আহমেদ ফারিয়া নামের একটি অ্যাকাউন্ট থেকে প্রকাশ করা ভিডিওটিতে মেয়েটির দাবি, তার বাবার নাম ফরিদ উদ্দিন আহমেদ। তিনি মিরপুর একটি স্বনামধন্য রেস্তোরাঁর ডিরেক্টর। ১০ মিনিট ৫৩ সেকেন্ডের এই ভিডিওটিতে মেয়েটি তার ওপর তার বাবার চালানো বিভিন্ন সময়ের নির্যাতনের বর্ণনার কথা জানান।



এবার ফেসবুকে ভিডিও আপলোড করে বাবার বিরুদ্ধে অমানুষিক নির্যাতনের কথা জানিয়েছেন এক বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী।

আহমেদ ফারিয়া নামের একটি অ্যাকাউন্ট থেকে প্রকাশ করা ভিডিওটিতে মেয়েটির দাবি, তার বাবার নাম ফরিদ উদ্দিন আহমেদ। তিনি মিরপুর একটি স্বনামধন্য রেস্তোরাঁর ডিরেক্টর। ১০ মিনিট ৫৩ সেকেন্ডের এই ভিডিওটিতে মেয়েটি তার ওপর তার বাবার চালানো বিভিন্ন সময়ের নির্যাতনের বর্ণনার কথা জানান। 


ভাইরাল হওয়া এই ভিডিওটি ফেসবুকে প্রকাশ করা হয়েছে ২১ জুলাই মধ্য রাতে। ভিডিওটি এরই মধ্যে দেখেছেন ৩ লাখ মানুষ।

তিনি বলেন, আমার বাবার নাম ফরিদ উদ্দিন আহমেদ। মিরপুর জিনজিয়ানের ডিরেক্টর। তিনি আমাকে ছোট বেলা থেকেই অনেক মারছে। উঠতে বসতে গালি গালাজ করছে। সে আমার গলা পাড়া দিয়ে ধরছে। আমি মরে যেতাম।......... সে আমাকে গোসল করে দেয়ার সময় আমার শরীরের বিভিন্ন অঙ্গ স্পর্শ করেছে...............।

আপলোডকৃত ভিডিওর ক্যাপশনে মেয়েটি লিখেছেন, আমার বাবা, যার হওয়া উচিত ছিল আমার গাইড, আমার রক্ষক তিনি দিনের পর দিন, বছরের পর বছর আমাকে মৌখিকভাবে ও শারীরিকভাবে নির্যাতন করেছে এবং আমাকে প্রায় শেষ করে দিয়েছে। তিনি বারবার আমাকে পিটিয়েছেন, বার বার আমাকে লাথি মেরেছেন, আমি উঠে দাঁড়াতে পারি নাই, খেতে পারি নাই! আজ এতটাই তীব্র হয়ে উঠেছে যে, আমি লুকিয়ে আছি। আমার পিতা আমার খোঁজ করছেন, তাই আজ এই ভিডিও আপলোড করতে বাধ্য হলাম যাতে তিনি আমাকে মেরে ফেলতে না পারেন। জাস্ট বাঁচতে চাই আমি।

এদিকে ভিডিওটি প্রকাশকারী অ্যাকাউন্টের ব্যবহারকারীর সঙ্গে এখনো কোনো যোগাযোগ করা যায়নি।

Post A Comment: