ভারতের উত্তর প্রদেশ রাজ্যে স্বামীর গুলিতে স্ত্রীর মৃত্যু হয়েছে। খাবার দিতে দেরি হওয়ায় স্বামী তাঁর স্ত্রীকে গুলি করেছেন বলে পারিবারিক সূত্র জানিয়েছে। টাইমস অব ইন্ডিয়া অনলাইনের প্রতিবেদনে বলা হয়, গত শনিবার মধ্যরাতে রাজ্যের গাজিয়াবাদে এই হত্যাকাণ্ড ঘটে।

  ভারতের উত্তর প্রদেশ রাজ্যে স্বামীর গুলিতে স্ত্রীর মৃত্যু হয়েছে। খাবার দিতে দেরি হওয়ায় স্বামী তাঁর স্ত্রীকে গুলি করেছেন বলে পারিবারিক সূত্র জানিয়েছে। টাইমস অব ইন্ডিয়া অনলাইনের প্রতিবেদনে বলা হয়, গত শনিবার মধ্যরাতে রাজ্যের গাজিয়াবাদে এই হত্যাকাণ্ড ঘটে।

স্ত্রী সুনাইনাকে (৫৫) হত্যার অভিযোগে স্বামী অশোক কুমারকে (৬০) গতকাল রোববার গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। অশোক তাঁর পরিবার-পরিজন নিয়ে কাভিনগর থানার মানসারোভার পার্ক কলোনিতে থাকেন। তিনি নিজের মিনিট্রাক চালান। স্থানীয় সময় রাত পৌনে ১১টার দিকে স্ত্রীকে গুলি করেন অশোক। গুলিবিদ্ধ স্ত্রী সুনাইনাকে দ্রুত কাছের হাসপাতালে নেওয়া হয়। তাঁর মাথায় গুলির চিহ্ন ছিল। পরীক্ষা শেষে তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন চিকিৎসক।

চিকিৎসক নেরাজ গার্গ বলেন, ওই নারীকে মৃত অবস্থায়ই হাসপাতালে আনা হয়।

সুনাইনার বড় ছেলে রিংকুর অভিযোগের ভিত্তিতে এ ঘটনায় অশোকের বিরুদ্ধে একটি এফআইআর নিয়েছে পুলিশ। রিংকুর ভাষ্য, ঘটনার দিন রাত নয়টার দিকে তাঁর বাবা অশোক মদ্যপ অবস্থায় বাসায় আসেন। রাত ১১টার দিকে রাতের খাবার দিতে বলেন। চাওয়ামাত্র খাবার দিতে পারবেন না বলে জানান রিংকুর মা। এ নিয়ে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে ঝগড়া বাধে। খাবার দিতে দেরি হওয়ার জেরে অশোক আগ্নেয়াস্ত্র বের করে সুনাইনাকে শাসান। পরিবারের অন্য সদস্যরা পরিস্থিতি সামাল দেওয়ার চেষ্টা করেন। একপর্যায়ে অশোক গুলি চালিয়ে দেন। গুলিটি সুনাইনার মাথায় লাগে। ঘটনাস্থলেই পড়ে যান তিনি।

পুলিশ জানায়, অশোককে প্রথমে হেফাজতে নেওয়া হয়। পরে তাঁকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তিনি দোষ স্বীকার করেছেন। হত্যায় ব্যবহৃত একটি রিভলবার জব্দ করা হয়েছে। অস্ত্রটি অবৈধ।

Post A Comment: