রংপুরের সিটি কর্পোরেশনের প্রধান প্রধান সড়কগুলো দীর্ঘদিন ধরে চলাচল অনুপোযোগী। একটু বৃষ্টি হলেই হাঁটু পানিতে তলিয়ে যায় সড়কগুলো। আর এর ফলে নগরবাসীকে পোহাতে হয় চরম দুর্ভোগ।

    রংপুরের সিটি কর্পোরেশনের প্রধান প্রধান সড়কগুলো দীর্ঘদিন ধরে চলাচল অনুপোযোগী। একটু বৃষ্টি হলেই হাঁটু পানিতে তলিয়ে যায় সড়কগুলো। আর এর ফলে নগরবাসীকে পোহাতে হয় চরম দুর্ভোগ।


দুইশত বছরের ঐতিহ্যবাহী বিভাগীয় নগরী রংপুর। সিটি করপোরেশন হওয়ার পর প্রায় ৫ বছর হতে চলেছে অথচ নগরীর প্রধান প্রধান সড়কগুলোর বেশিরভাগই খানাখন্দতে ভরা, বেশিরভাগ সড়কে বিশালাকার গর্ত তৈরি হয়েছে। সড়কগুলো চলাচলের পুরোপুরি অনুপোযোগী হলেও দীর্ঘদিন ধরে সংস্কার করার কোনো উদ্যোগ গ্রহণ করছে না সিটি করপোরেশন।

সরেজমিন নগরীর প্রধান সড়ক পায়রা চত্বরের অবস্থা এতটাই নাজুক পুরো রাস্তা খানাখন্দতে ভরা। প্রতিদিন এই সড়কে কমপক্ষে ৫০ হাজার মানুষ চলাচল করে। প্রতিদিনই হয় রিক্সা বা অটোরিক্সা উল্টে গিয়ে যাত্রীরা আহত হচ্ছে। আর বৃষ্টি হলে এ সড়ক দিয়ে রিক্সা বা মটরসাইকেলসহ অন্যান্য গাড়িতে চলাচল করা কঠিন হয়ে পড়ে নগরবাসীর।

এই এলাকার অধিবাসী মিজানুর রহমান জানান, সিটি মেয়রকে বহুবার অনুরোধ জানানোর পরেও কোনো কাজ হয়নি। আর কবেই বা হবে সংস্কার? কারণ মেয়রের মেয়াদ আছে মাত্র ৬ মাস ফলে আমরা আশা ছেড়ে দিয়েছি।

নগরীর প্রধান প্রধান সড়ক ছাড়াও কামারপাড়া থেকে আবহাওয়া অফিস সড়কটির অবস্থা খুবই খারাপ। সারা বছর এই সড়কের বিভিন্ন স্থানে পানিতে তলিয়ে থাকে। একইভাবে দক্ষিণ কামার পাড়া থেকে মন্দির পর্যন্ত সড়কটি ব্যবহার অনুপোযোগী দীর্ঘদিন ধরে। একই অবস্থা নগরীর সেনপাড়া থেকে শিশুমঙ্গল স্কুল বাবুখাঁ নজরুল পাঠাগার থেকে বাবুখাঁ সড়ক, ঠিকাদারপাড়া বিকনের মোড়, হাবিবনগর কলেজ রোড সড়ক, শালবন থেকে হারাগাছ সড়ক, বেগম রোকেয়া কলেজ সড়কসহ নগরীর শতকরা ৭৫ ভাগ সড়কের।
রংপুর সিটি মেয়র আলহাজ্ব সরফুদ্দিন আহম্মেদ ঝন্টুর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, ইতোমধ্যে নগরীর প্রায় অনেক রাস্তার উন্নয়ন কাজ শুরু হয়েছে। আগামী এক দেড় মাস পর নগরবাসী সব রাস্তা ভাল দেখতে পারবে।

   

Post A Comment: