বেতন-ভাতা বৃদ্ধিসহ ১১ দফা দাবিতে তারানগর ভবনের প্রধান ফটকে তালা দিয়ে অবস্থান অব্যাহত রেখেছেন রাজশাহী সিটি করপোরেশনের (রাসিক) কর্মচারীরা। নগর ভবনের সামনের সড়কে বসে বিক্ষোভ করছেন তারা।

    বেতন-ভাতা বৃদ্ধিসহ ১১ দফা দাবিতে তারানগর ভবনের প্রধান ফটকে তালা দিয়ে অবস্থান অব্যাহত রেখেছেন রাজশাহী সিটি করপোরেশনের (রাসিক) কর্মচারীরা। নগর ভবনের সামনের সড়কে বসে বিক্ষোভ করছেন তারা।


সোমবার সকাল থেকেই রোববারের মতোই কর্মসূচি শুরু হয়। এতে করে রাসিকের কোনো কর্মচারী সকাল থেকে নগর ভবনের ভেতরে ঢুকতে পারেননি। আন্দোলনে নগর ভবনের প্রধান ফটকে তালা ঝুলিয়ে দিয়েছেন সিটি করপোরেশনের দৈনিক মজুরিভিত্তিক শ্রমিকরা।

অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে সেখানে বিপুলসংখ্যক পুলিশ সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে।

রাসিক শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি দুলাল শেখ বলেন, গত বছরের ২৪ মে অর্থ মন্ত্রণালয়ের এক পরিপত্রে সিটি করপোরেশনের দৈনিক মজুরির ভিত্তিতে নিয়োগপ্রাপ্ত দক্ষ নিয়মিত কর্মচারীদের দৈনিক ৫০০ টাকা এবং অদক্ষ অনিয়মিত কর্মচারীদের প্রতিদিন ৪৫০ টাকা নির্ধারণ করা হয়।

কিন্তু গেল এক বছরেও করপোরেশন কর্মচারীদের দৈনিক মজুরি বাড়ায়নি বলে জানান তিনি।


তিনি আরো বলেন, চতুর্থ শ্রেণির কর্মচারীদের পাওনা ৪০ লাখ টাকা পরিশোধ করেনি। এমতাবস্থায় আমাদের আন্দোলনে নামতে হচ্ছে। ঈদের পর বৈঠকের মাধ্যমে সমাধানের কথা ছিল। কিন্তু তা হয়নি।

শহীদ এ.এইচ.এম কামারুজ্জামান কেন্দ্রীয় উদ্যান, চিড়িয়াখানা এবং রাসিকের পরিবহন শাখা (গ্যারেজ) বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।

রাজশাহী সিটি কর্পোরেশন শ্রমিক ইউনিয়নের ১১ দফা দাবির মধ্যে রয়েছে- দৈনিক মজুরি ভিত্তিক কর্মচারীদের অর্থ মন্ত্রণালয়ের অর্থ বিভাগের পরিপত্র অনুযায়ী মজুরি বৃদ্ধি, স্থায়ী কর্মচারীদের জ্যেষ্ঠতার ভিত্তিতে পদোন্নতি প্রদান, স্থায়ী কর্মচারীদের গৃহ নির্মাণের ব্যাংক লোনের ব্যবস্থা, মৃত ও অবসরপ্রাপ্ত কর্মচারীদের পোষ্যদের চাকরি প্রদান, মৃত ও অবসরপ্রাপ্ত কর্মচারীদের অবসরকালীন ভাতা সম্পন্নরূপে প্রদান, স্থায়ী কর্মচারীদের বদলি, শোকজ ও সাসপেন্ড বন্ধ এবং বরখাস্তকৃতদের চাকরিতে পুনর্বহাল, সাংগঠনিক কাঠামো সংশোধন পূর্বক নিয়োগের ব্যবস্থা, মজুরি ভিত্তিক কর্মচারীদের চাকরি স্থায়ী, কল্যাণ তহবিল বাস্তবায়নে চূড়ান্ত অনুমোদন এবং স্থায়ী কর্মচারীদের পোশাক, জুতা ও ছাতাসহ সকল বকেয়া পাওনা পরিশোধ করতে হবে।

উল্লেখ্য, গত ১২ জুন রাসিকের দৈনিক মজুরিভিত্তিক কর্মচারীদের বেতন বৃদ্ধিসহ ১১ দফা দাবিতে নগরভবনের সামনে মানববন্ধন কর্মসূচি পালিত হয়। এসময় রাসিককের কর্মচারীরা উপস্থিত ছিলেন। তারা সেই মানববন্ধন থেকে এই কর্মসূচি ঘোষণা দিয়েছিলেন।

Post A Comment: