রামপালে কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র নিয়ে জাতিসংঘ শিক্ষা, বিজ্ঞান ও সংস্কৃতি সংস্থা-ইউনেস্কোর আর কোনো আপত্তি নেই দাবি করে বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বলেছেন, পরিবেশ সুরক্ষার জন্য তাদের পক্ষ থেকে কেবল কিছু শর্ত দেওয়া হয়েছে।
 


রামপালে কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র নিয়ে জাতিসংঘ শিক্ষা, বিজ্ঞান ও সংস্কৃতি সংস্থা-ইউনেস্কোর আর কোনো আপত্তি নেই দাবি করে বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বলেছেন, পরিবেশ সুরক্ষার জন্য তাদের পক্ষ থেকে কেবল কিছু শর্ত দেওয়া হয়েছে।


শুক্রবার রাজধানীর গুলশানের বাসায় সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি একথা জানান।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, রামপালে কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র নিয়ে ইউনেস্কোর আর কোনো আপত্তি নেই। যেখানে বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণের কাজ চলছে, সেখানেই চলতে পারবে।

‘তবে পরিবেশ সুরক্ষার জন্য ইউনেস্কোর পক্ষ থেকে বেশ কিছু শর্ত দেওয়া হয়েছে। সেগুলো বাংলাদেশ মেনে নিয়েছে। বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণের ক্ষেত্রে শর্তগুলো মানা হবে বলে তাদের আশ্বস্ত করেছি’ যোগ করেন তিনি।

নসরুল হামিদ জানান, গত বুধবার ইউনেস্কোর ৪১তম সভায় বাংলাদেশের সুন্দরবনের বিষয়টি আলোচনায় ওঠে। সেখানে বাংলাদেশের একটি প্রতিনিধিদল রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণে প্রযুক্তিগত বিষয়গুলো তুলে ধরেছেন।

তিনি বলেন, ওই প্রতিনিধিদলটি এই বিদ্যুৎকেন্দ্রের কারণে পরিবেশে যেসব প্রভাব পড়বে সেগুলোও তুলে ধরেছেন। তাদের বোঝাতে সক্ষম হয়েছেন পরিবেশ সুরক্ষাকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণ করা হচ্ছে। এতে সুন্দরবনে ক্ষতিকর প্রভাব পড়বে না।

এর আগে বৃহস্পতিবার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, ইউনেস্কো রামপাল কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের ব্যাপারে তাদের আপত্তি তুলে নিয়েছে। একই সঙ্গে সুন্দরবনের নাম বিশ্ব ঐতিহ্যের তালিকা থেকে বাদ দেওয়ার সিদ্ধান্ত বাতিল করেছে।

তবে ইউনেস্কো ও বিশ্ব ঐতিহ্যবিষয়ক কমিটির পক্ষ থেকে এ ব্যাপারে মন্তব্য করা হয়নি।

Post A Comment: