এমসি কলেজ হোস্টেল খুলে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে কর্তৃপক্ষ। একাডেমিক কাউন্সিলের বৈঠক শেষে বোরবার বিকেলে কলেজ অধ্যক্ষ নিতাই চন্দ্র চন্দ এ কথা জানিয়েছেন। গত ১৩ জুলাই এমসি কলেজে ছাত্রলীগের দু’গ্রুপে সংঘর্ষের জের ধরে কলেজ হোস্টেলের ৩৮টি কক্ষ ভাঙচুর করে ছাত্রলীগের একাংশ। এর প্রেক্ষিতে ওইদিনই হোস্টেল খালি করার সিদ্ধান্ত নেয় কলেজ কর্তৃপক্ষ।

    এমসি কলেজ হোস্টেল খুলে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে কর্তৃপক্ষ। একাডেমিক কাউন্সিলের বৈঠক শেষে বোরবার বিকেলে কলেজ অধ্যক্ষ নিতাই চন্দ্র চন্দ এ কথা জানিয়েছেন। গত ১৩ জুলাই এমসি কলেজে ছাত্রলীগের দু’গ্রুপে সংঘর্ষের জের ধরে কলেজ হোস্টেলের ৩৮টি কক্ষ ভাঙচুর করে ছাত্রলীগের একাংশ। এর প্রেক্ষিতে ওইদিনই হোস্টেল খালি করার সিদ্ধান্ত নেয় কলেজ কর্তৃপক্ষ।


রোববার বিকেলে ঘন্টাব্যাপী একাডেমিক কাউন্সিলের বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় উল্লেখ করে কলেজ অধ্যক্ষ নিতাই চন্দ্র চন্দ বৈধ শিক্ষার্থীদের আবাসিক কার্ড দেওয়ার মাধ্যমে শিক্ষার্থী তোলা হবে। এক্ষেত্রে অবৈধ কেউ ওঠার চেষ্টা করলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

গত ১৩ জুলাই সকালে ছাত্রলীগের দুই পক্ষের সংঘর্ষের জেরে হোস্টেলের ৩৯ টি কক্ষ ভাঙচুর করা হয়। উদ্ভূত পরিস্থিতি এড়াতে কলেজ একাডেমিক কাউন্সিলের সভায় হোস্টেল বন্ধ ঘোষণা করা হয় এবং সন্ধ্যার মধ্যে সকল আবাসিক ছাত্রকে হল ত্যাগের নির্দেশ দেওয়া হয়। এঘটনায় ছাত্রলীগ নেতা টিটু চৌধুরীকে প্রধান আসামি করে ১০ জনের নাম উল্লেখ ছাড়াও অজ্ঞতানামা আরো ২০-২৫ জনকে আসামি করে মামলা করেন কলেজ অধ্যক্ষ।

Post A Comment: