একাত্তরের মানবতাবিরোধী অপরাধের বিচারের জন্য গঠিত আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের চেয়ারম্যান বিচারপতি আনোয়ারুল হকের নামাজে জানাজা সম্পন্ন হয়েছে।

    একাত্তরের মানবতাবিরোধী অপরাধের বিচারের জন্য গঠিত আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের চেয়ারম্যান বিচারপতি আনোয়ারুল হকের নামাজে জানাজা সম্পন্ন হয়েছে।


শুক্রবার বাদ জুমা সুপ্রিম কোর্ট চত্বরে তার নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। এসময় প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার (এসকে) সিনহা উপস্থিত ছিলেন।

জানাজায় অংশ নেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক, খাদ্যমন্ত্রী কামরুল ইসলাম, সাবেক প্রধান বিচারপতি মোজাম্মেল হোসেন, আপিল বিভাগ ও হাইকোর্ট বিভাগের বিচারপতিগণ, আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের বিচারপতিগণ, সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি আইনজীবী জয়নুল আবেদীন, সুপ্রিম কোর্টের সিনিয়র আইনজীবী ইউসুফ হোসেন হুমায়ন, আইনজীবী আব্দুল বাসেত মজুমদারসহ বিভিন্ন আইনজীবী নেতারা।

বাদ আছর পরবর্তী জানাজা শেষে তাকে রাজধানীর জুরাইন কবরস্থানে দাফন করা হবে বলে জানিয়েছেন ট্রাইব্যুনালের রেজিস্ট্রার শহিদুল ইসলাম ঝিনুক।

এর আগে বৃহস্পতিবার বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালের (বিএসএমএমইউ) নিবিড় পরিচর্যাকেন্দ্রে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বিচারপতি আনোয়ারুল হক মারা যান।

তিনি দীর্ঘদিন ধরে ক্যান্সার রোগে ভুগছিলেন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৬১ বছর। বিচারপতি আনোয়ারুল হক মৃত্যুকালে স্ত্রী ও অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন। তার কোনো সন্তান নেই।

তাকে কয়েকদফা উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে সিঙ্গাপুরে নেওয়া হয়েছিল। সেখানে চিকিৎসা শেষে কিছুটা সুস্থ হওয়ার তাকে দেশে ফেরত আনা হয়। তবে শারীরিক অবস্থা অবনতি হলে তাকে আবার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি করা হয়। সেখানে তার শারীরিক অবস্থার আরো অবনতি হলে তাকে আইসিইউতে নেওয়া হয়।

চলতি বছরের শুরুতে এক সপ্তাহ যাবৎ বারডেম হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন তিনি। সেখানে তার অবস্থান পরিবর্তন না হলে তাকে প্রথমবার গত ২১ জানুয়ারি সিঙ্গাপুরে পাঠানো হয়।

বিচারপতি আনোয়ারুল হকের মৃত্যুতে গতকাল গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেন প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা ও আইনমন্ত্রী আনিসুল হক।

উল্লেখ্য, বিচারপতি আনোয়ারুল হক ১৯৫৬ সালে ঢাকায় জন্মগ্রহণ করেন। ১৯৮১ সালে সহকারী জজ হিসেবে বিচারিক জীবন শুরু করেন। তিনি আইন মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব হিসেবেও দায়িত্বপালন করেন। ২০১০ সালের ১২ ডিসেম্বর হাইকোর্টের অতিরিক্ত বিচারপতি হিসেবে নিয়োগ পান বিচারপতি আনোয়ারুল হক। আর ২০১৫ সালের ১৫ সেপ্টেম্বর ট্রাইব্যুনালের চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্বপালন শুরু করেন তিনি।

Post A Comment: