রাজশাহীতে দুটি বাড়িতে মিলেছে আরো ১৮টি গোখরা সাপ ও ৪৫টি ডিম। সোমবার রাতে জেলার তানোরের কলমা গ্রামের আরিফুজ্জামানের বাড়িতে ও দুর্গাপুরের হরিপুর গ্রামের আব্দুল আজিজের বাড়িতে এসব সাপের বাচ্চা ও ডিম পাওয়া যায়। এ নিয়ে এলাকায় সাপ আতঙ্ক বিরাজ করছে।

    রাজশাহীতে দুটি বাড়িতে মিলেছে আরো ১৮টি গোখরা সাপ ও ৪৫টি ডিম। সোমবার রাতে জেলার তানোরের কলমা গ্রামের আরিফুজ্জামানের বাড়িতে ও দুর্গাপুরের হরিপুর গ্রামের আব্দুল আজিজের বাড়িতে এসব সাপের বাচ্চা ও ডিম পাওয়া যায়। এ নিয়ে এলাকায় সাপ আতঙ্ক বিরাজ করছে।


তানোরের আরিফুজ্জামান সাংবাদিকদের জানান, সোমবার রাতে মাটির বাড়ির গোয়াল ঘরের গর্তে ৮টি গোখরা সাপের বাচ্চা এক এক করে বের হতে থাকে। পরে সাপগুলো মেরে মাটিতে পুতে ফেলা হয়েছে।

এর আগে গত বৃহস্পতিবার রাতে তানোর পৌর এলাকার ভদ্রখন্ড গ্রামের এক কৃষকের গোয়াল ঘরে ১২৫টি বিষধর গোখরা সাপ পাওয়ার পর থেকেই এলাকায় সাপের আতঙ্কে ভুগছেন কৃষকরা।

এদিকে দুর্গাপুরের আব্দুল আজিজ সাংবাদিকদের জানান, সোমবার রাত ১২টার দিকে বাড়ির বারান্দায় একটি গোখরা সাপ দেখতে পান তিনি। এ সময় সাপটি তাকে দেখে বারান্দায় গর্তে ঢুকে পড়ে। পরে ওই রাতেই গর্ত খুড়ে ৪৫টি সাপের ডিম ও ১০টি সাপের বাচ্চা পাওয়া যায়। পরে ডিমগুলো ভেঙে নষ্ট করা হয় এবং সাপের বাচ্চাগুলো আগুনে পুড়িয়ে মারা হয়।

এর আগে সোমবার বিকেলে একই উপজেলার হোজা গ্রামের রবিউল ইসলামের বাড়িতে ২৭টি গোখরা সাপ মারা হয়। সেখানে পাওয়া আরও ৩০টি সাপের ডিম নষ্ট করা হয়। একই দিন উপজেলার বেলঘরিয়া গ্রামের সিদ্দিক আলীর বাড়িতে একটি গোখরা ও ৪৫টি সাপের ডিম পাওয়া যায়।

Post A Comment: