আমদানি-রফতানির সুবিধার্থে চট্টগ্রাম সমুদ্রবন্দর ও বেনাপোল স্থলবন্দর ২৪ ঘণ্টা খোলা রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। আগামী ১ আগস্ট থেকে এ সিদ্ধান্ত কার্যকর হবে। বেনাপোল-পেট্রাপোল স্থলবন্দর ২৪ ঘণ্টা খোলা রাখার বিষয়ে বুধবার সচিবালয়ে এক আন্তঃমন্ত্রণালয় সভা শেষে নৌপরিবহন মন্ত্রী শাজাহান খান সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান।
আগস্ট থেকে চট্টগ্রাম-বেনাপোল বন্দর ২৪ ঘণ্টা খোলা

    আমদানি-রফতানির সুবিধার্থে চট্টগ্রাম সমুদ্রবন্দর ও বেনাপোল স্থলবন্দর ২৪ ঘণ্টা খোলা রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। আগামী ১ আগস্ট থেকে এ সিদ্ধান্ত কার্যকর হবে। বেনাপোল-পেট্রাপোল স্থলবন্দর ২৪ ঘণ্টা খোলা রাখার বিষয়ে বুধবার সচিবালয়ে এক আন্তঃমন্ত্রণালয় সভা শেষে নৌপরিবহন মন্ত্রী শাজাহান খান সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান।


তিনি বলেন, ‘আলোচনার মাধ্যমে আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি সপ্তাহে সাত দিন ২৪ ঘণ্টা ব্যাংক ও কাস্টমস অফিস খোলা রাখা হবে। এনবিআর (জাতীয় রাজস্ব বোর্ড) ও ব্যাংক ২৪ ঘণ্টা খোলা রাখার ব্যাপারে একমত এবং তারা কার্যক্রম শুরু করেছে।’

মন্ত্রী বলেন, ‘পেট্রাপোল বন্দরের কার্যক্রম পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে করতে হয়। কী কী কাজ করতে হবে এজন্য তারা ভারতের সঙ্গে যোগাযোগ করে ব্যবস্থা নেব।’

‘আমাদের সচিব সাহেব, কাস্টমসের কর্মকর্তারা বেনাপোল বন্দরে গিয়েছিলেন। তারা সেই কার্যক্রম (২৪ ঘণ্টা খোলা) শুরু করার প্রাথমিক কাজ শেষ করেছেন।’

তিনি আরো বলেন, ‘একই সঙ্গে চট্টগ্রাম বন্দরেও আমরা এই কার্যক্রমটা (২৪ ঘণ্টা খোলা রাখা) শুরু করছি। যাতে এ দুটি বৃহৎ বন্দরে আমদানিকারক-রফতানিকারকরা সুযোগ-সুবিধা পান।’

শাজাহান খান বলেন, ‘আমরা আশা করি আগামী ১ আগস্ট থেকে এটা আনুষ্ঠানিকভাবে শুরু করতে পারব। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে এ ব্যাপারে প্রস্তাবনা দিয়েছি। তিনি ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে এটা আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন করবেন। তিনি মোটামুটি রাজি হয়েছেন। আমরা এখান থেকে একটি সামারি পাঠালে তিনি একটা তারিখ দেবেন। সেই তারিখে আমরা আনুষ্ঠানিকভাবে শুরু করব।’

প্রধানমন্ত্রী সব বন্দর ২৪ ঘণ্টা খোলা রাখার নির্দেশনা দিয়েছেন বলেও জানান মন্ত্রী।

অন্যান্য স্থলবন্দর ২৪ ঘণ্টা খোলা রাখার বিষয়ে কী চিন্তা-ভাবনা করা হচ্ছে- জানতে চাইলে নৌপরিবহন মন্ত্রী বলেন, ‘সব বন্দরে একইভাবে মালামাল আদান-প্রদান কিংবা আমদানি-রফতানি হয় না। সেজন্য সব বন্দর সেভাবে হচ্ছে না। আমরা মনে করি ভবিষ্যতে যেখানে আদান-প্রদান বেশি হবে, মালামাল আমদানি-রফতানি বেশি হবে সেখানে একই পদ্ধতিতে এগোব।’

শাজাহান খান বলেন, ‘এরই মধ্যে আমরা মনে করছি ভোমরা বন্দর খুব ভাল আবস্থানে আছে। এই বন্দরেও কিছুদিন পর একইভাবে কার্যক্রম শুরু করার প্রয়োজন হতে পারে। আমরা সেই ব্যাপারে তৎপর আছি। অন্যান্য বন্দরে যখন প্রয়োজন হবে আমরা সেটা করব।’

চট্টগ্রাম বন্দরে দুটি গ্যান্ট্রি ক্রেন অচল হয়ে যাওয়ায় মালামাল খালাসে সমস্যা সৃষ্টি হয়েছে জানিয়ে নৌপরিবহনমন্ত্রী বলেন, ‘চট্টগ্রাম শহর পানির নিচে থাকার কারণেও তাৎক্ষণিক জটিলতা সৃষ্টি হয়েছে। আমরা এটাকে খুব শিঘ্রই ওভারকাম করতে পারবো ইনশাআল্লাহ।’

ইতোমধ্যে তিনটি রাবার গ্যান্ট্রি ক্রেন এসে গেছে জানিয়ে তিনি বলেন, ‘আশা করছি এই বছরের মধ্যে ১১টি রাবার গ্যান্ট্রি ক্রেন চলে আসবে। আরও আশা করছি ২০১৮ সালের মধ্যে ছয়টি গ্যান্ট্রি ক্রেন সংগ্রহ করত পারব।’

চট্টগ্রাম বন্দরে আরও তিনটি টার্মিনাল নির্মাণ করা হচ্ছে জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, ‘আশা করছি ২০১৮ সালের মধ্যে পতেঙ্গা টার্মিনাল অপারেশনে নিয়ে আসতে পারব।’

সভায় নৌপরিবহন সচিব অশোক মাধব রায়সহ জাতীয় রাজস্ব বোর্ড, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, বাংলাদেশ ব্যাংক, চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষ, বাংলাদেশ স্থল বন্দর কর্তৃপক্ষের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

Post A Comment: