সড়কের দু’ধারের ঝোঁপ-জঙ্গল পরিষ্কার করছেন খোদ জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপার। মঙ্গলবার সকালে চুয়াডাঙ্গা-মেহেরপুর সড়কের আলুকদিয়া বাজার নামক স্থানে ব্যতিক্রমী এই উদ্যোগ নেওয়া হয়। মঙ্গলবার সকালে চুয়াডাঙ্গা-মেহেরপুর সড়কের আলুকদিয়া বাজার নামক স্থানে জেলা প্রশাসক জিয়াউদ্দীন আহমেদকে ধারালো হাসুয়া নিয়ে সড়কের দুই ধারের ঝোপ জঙ্গল পরিস্কার করতে দেখা যায়। এর কিছুক্ষণ পরই একই কাজে পোশাক পরিহিত অবস্থায় যোগ দেন পুলিশ সুপার নিজাম উদ্দীনও।
ঝোঁপ-জঙ্গল কাটলেন জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপার

    সড়কের দু’ধারের ঝোঁপ-জঙ্গল পরিষ্কার করছেন খোদ জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপার। মঙ্গলবার সকালে চুয়াডাঙ্গা-মেহেরপুর সড়কের আলুকদিয়া বাজার নামক স্থানে ব্যতিক্রমী এই উদ্যোগ নেওয়া হয়। মঙ্গলবার সকালে চুয়াডাঙ্গা-মেহেরপুর সড়কের আলুকদিয়া বাজার নামক স্থানে জেলা প্রশাসক জিয়াউদ্দীন আহমেদকে ধারালো হাসুয়া নিয়ে সড়কের দুই ধারের ঝোপ জঙ্গল পরিস্কার করতে দেখা যায়। এর কিছুক্ষণ পরই একই কাজে পোশাক পরিহিত অবস্থায় যোগ দেন পুলিশ সুপার নিজাম উদ্দীনও।




দুইজনের ব্যতিক্রমী সামাজিক এই কাজের খবর ছড়িয়ে পড়লে আধাঘণ্টার মধ্যে সেখানে উপস্থিত হন স্থানীয় সরকারের উপ-পরিচালক আনজুমান আরা, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক আব্দুর রাজ্জাক, জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি ও সদর উপজেলা চেয়ারম্যান আশাদুল হক বিশ্বাস, পৌর মেয়র ওবাইদুর রহমান চৌধুরী জিপু, অতি জেলা ম্যাজিস্ট্রেট জসিম উদ্দীন, অতি পুলিশ সুপার আব্দুল মোমিন, সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মৃণাল কান্তি দে, সহকারী কমিশনার ভূমি পুলক কুমার মণ্ডল স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ইসলাম উদ্দীন, জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক জানিফ আহম্মেদসহ সুশীল সমাজের প্রতিনিধি, সরকারী বেসরকারী কর্মকর্তা, সাংবাদিক ও জনপ্রতিনিধিসহ বিভিন্ন সামাজিক প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিরা।

ঘণ্টাব্যাপি পরিচ্ছন্ন অভিযান চালিয়ে চুয়াডাঙ্গা-মেহেরপুর সড়কের আলুকদিয়া বাজার নামক স্থানের রাস্তার দুই পাশ পরিষ্কার করা হয়।

অভিযান শেষে গণমাধ্যমকর্মীদের সাথে কথা বলেন জেলা প্রশাসক জিয়াউদ্দীন আহমেদ। তিনি জানান, চুয়াডাঙ্গাতে যোগদানের পর মাঝে মাঝেই পত্রিকাতে খবর আসে সড়কে ছিনতাই ও ডাকাতির। ডাকাতির স্পটগুলো পরিদর্শন করার সময় দেখতে পায় সড়কের দু,ধারে বড় বড় ঝোপ জঙ্গল। তখনিই সিদ্ধান্ত নিই এগুলো অপসারণের।

পুলিশ সুপার নিজাম উদ্দীন জানান, চুয়াডাঙ্গার পাঁচটি প্রধান সড়কের প্রতিটিতেই দু, ধারে বড় বড় ঝোঁপ জঙ্গল রয়েছে। এ কারণে দুষ্কৃতিকারীরা সহজে অপরাধ সংঘটিত করে পালিয়ে যেতে সক্ষম হতো। জেলা প্রশাসক যে উদ্যোগ গ্রহণ করেছেন তা প্রশংসার দাবিদার।

চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মৃনাল কান্তি দে জানান, প্রতিটি সড়কে এই পরিচ্ছন্ন অভিযান চালানো হবে। একই সাথে প্রতি তিন মাস পর পর সড়কগুলোতে অভিযান অব্যাহত থাকবে।

Post A Comment: