সাতক্ষীরার কলারোয়ায় স্ত্রীকে গলাটিপে হত্যার একদিন পর অনুশোচনায় স্বামী মনিরুল ইসলাম আত্মহত্যা করেছেন বলে জানা গেছে।
স্ত্রী হত্যার পরদিন স্বামীর আত্মহত্যা 

সাতক্ষীরার কলারোয়ায় স্ত্রীকে গলাটিপে হত্যার একদিন পর অনুশোচনায় স্বামী মনিরুল ইসলাম আত্মহত্যা করেছেন বলে জানা গেছে।


উপজেলার দেয়াড়া গ্রামে স্ত্রীর কবরের পাশে গিয়ে শুক্রবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে বিষপান করেন তিনি। পরে তাকে উদ্ধার করে কলারোয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করলে রাত দেড়টার দিকে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

মনিরুল ইসলাম যশোর জেলার ঝিকরগাছা থানার রাজবাড়ী গ্রামের রবিউল ইসলামের ছেলে। নিহত গৃহবধূ তহমিনা খাতুন কলারোয়া উপজেলার দেয়াড়া গ্রামের ইমান আলি সরদারের মেয়ে।

কলারোয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বিপ্লব কুমার নাথ স্থানীয়দের বরাত দিয়ে জানান, রাত সাড়ে ৯টার দিকে স্ত্রী তহমিনা খাতুনের কবরের পাশে গিয়ে অনুশোচনায় বিষপান করেন মনিরুল। কবরস্থানে তার গোঙানি শুনে স্থানীয়রা পুলিশে খবর দেয়। পুলিশ তাকে উদ্ধার করে কলারোয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রাত দেড়টার দিকে তার মৃত্যু হয়।

তিনি আরো জানান, মনিরুল মৃত্যুর আগে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আরএমও’র কাছে স্বীকার করে গেছে তিনি নিজেই তার স্ত্রীকে গলাটিপে হত্যা করেছেন। হত্যার পর তিনি তহমিনার গলায় ওড়না পেঁচিয়ে ঘরের সিলিং ফ্যানে টানানোর চেষ্টা করে ব্যর্থ হলে মানসিকভাবে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েন। এতে অনুশোচনায় আত্মহত্যার পথ বেছে নেন তিনি।

গত বৃহস্পতিবার ভোরে স্ত্রী তহমিনা খাতুনকে হত্যা করে পালিয়ে যান মনিরুল ইসলাম। এ ঘটনায় তার বিরুদ্ধে থানায় মামলা হয়।

Post A Comment: