মিরপুর থানায় মো. রুবেল নামে একজনের বিরুদ্ধে মারামারি ও চুরির মামলায় আদালতে অভিযোগপত্র দেওয়া হয়েছে। কিন্তু রুবেল বলে যাকে আসামি করে অভিযোগপত্র দেওয়া হয়েছে তার বয়স মাত্র ১০ মাস। আর ঘটনার সময় রুবেলের বয়স ছিল মাত্র ২৮ দিন।

 

মিরপুর থানায় মো. রুবেল নামে একজনের বিরুদ্ধে মারামারি ও চুরির মামলায় আদালতে অভিযোগপত্র দেওয়া হয়েছে। কিন্তু রুবেল বলে যাকে আসামি করে অভিযোগপত্র দেওয়া হয়েছে তার বয়স মাত্র ১০ মাস। আর ঘটনার সময় রুবেলের বয়স ছিল মাত্র ২৮ দিন।

এদিকে রুবেল আত্মসমর্পণ করে ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম (সিএমএম) আদালতে জামিন নিতে গেলে হতবাক হয়ে যান সেখানকার আইনজীবী ও আদালতের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা।

আদালত সূত্রে জানা গেছে, শিশুটিকে গত ৩০ এপ্রিল হাজির করার পর তার আইনজীবীর আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে মামলার তদন্ত কর্মকর্তাকে আদালত তলব করেছেন।

তবে মামলাটির তদন্তকারী মিরপুর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মারুফুল ইসলাম জানান, তিনি গুরুতর অসুস্থ হয়ে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি আছেন। কথা বলতে পারবেন না।

শিশু রুবেলের মা শামীমা আক্তার জানান, তার দুই ছেলে ও দুই মেয়ে। বড় ছেলে নবম শ্রেণিতে পড়ে। আর ছোট ছেলে রুবেলের বয়স ১০ মাস।

মামলার এজাহারে বলা হয়, গত বছরের ২৬ জুন মধ্য পাইকপাড়ার আবুল কাশেম (৫৩), তার দুই ছেলে রুবেল (৩০), তুষারসহ (১৯) ২৩ জন আসামি অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে তার জমি দখল করতে আসেন। আসামিরা তার দোচালা ঘরের টিন ভেঙে ফেলেন। ঘর থেকে সোনার চেইনসহ ২৫ হাজার টাকা চুরি করে নিয়ে তাকে হুমকি দেন আসামিরা।

এ বিষয়ে বাদী হাবিবুর রহমান কাছে দাবি করেন, রুবেল নামের ৩০ বছরের একজন আসামি তার বাড়িতে হামলা চালিয়েছিলেন। মামলায় ভুল করে অন্য রুবেলের পরিবর্তে আবুল কাশেমের ছেলে শিশু রুবেলকে আসামি করা হয়েছে। তিনি বলেন, এটা বড় ধরনের ভুল। তিনি চান শিশুটি হয়রানি থেকে মুক্তি পাক।

মিরপুর থানার ওসি নজরুল ইসলাম বলেন, ‘আমাদের ভুল হয়েছে তাতে কোনো সন্দেহ নেই। কেন ছয় মাসের শিশুর বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দেওয়া হয়েছে, তার ব্যাখ্যা এসআই মারুফ দেবেন।’

Post A Comment: