দেশের কারাগারের সার্বিক ব্যবস্থাপনা আগের চেয়ে অনেক উন্নত হয়েছে। বাংলাদেশে কারাবন্দিদের শ্রেণিবিন্যাস না থাকলেও অন্য অনেক দেশের চেয়ে এ দেশের কারাগারের ব্যবস্থাপনা উন্নত বলে দাবি করেছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল। আগামীতে শ্রেণিবিন্যাসের বিষয়টি নিয়ে কাজ করা হবে বলেও জানান তিনি।

    দেশের কারাগারের সার্বিক ব্যবস্থাপনা আগের চেয়ে অনেক উন্নত হয়েছে। বাংলাদেশে কারাবন্দিদের শ্রেণিবিন্যাস না থাকলেও অন্য অনেক দেশের চেয়ে এ দেশের কারাগারের ব্যবস্থাপনা উন্নত বলে দাবি করেছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল। আগামীতে শ্রেণিবিন্যাসের বিষয়টি নিয়ে কাজ করা হবে বলেও জানান তিনি।


রাজধানীর খিলক্ষেতের ‘হোটেল লা মেরিডিয়ান’ মঙ্গলবার সকালে আয়োজিত ‘কারাগারের মধ্যে নিরাপত্তা এবং মানবিক চাহিদার ভারসাম্য’ শীর্ষক সম্মেলনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি বলেন, ‘১৯৭১ সালে যুদ্ধের পর থেকে আন্তর্জাতিক রেড ক্রস কমিটি (আইসিআরসি) বাংলাদেশে কাজ করছে। ২০০৬ সাল থেকে বাংলাদেশে তারা সক্রিয় কাজ শুরু করে। ২০১৪ সাল থেকে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় আইসিআরসি এর সঙ্গে কাজ করছে। বৈশ্বিক প্রেক্ষাপটে কারাবন্দিদের অধিকার, চাহিদা ও মানবিক বিষয়গুলোর ভারসাম্য রক্ষা গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠছে। অনেক দেশে কারাবন্দিদের শ্রেণিবিন্যাস করা হয়েছে। তবে বাংলাদেশে এখনো তা সম্ভব হয়নি। আগামীতে এ বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে বিবেচনা করা হবে।’

এ সম্মেলনে অন্য দেশের সঙ্গে কারা তথ্য শেয়ারিংয়ের মাধ্যমে আমরা কারা সেক্টরকে আরো উন্নত করতে পারব বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি।

অনুষ্ঠানে কারা মহাপরিদর্শক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল সৈয়দ ইফতেখার উদ্দীন বলেন, ‘বেশ কয়েক বছর ধরে আমরা আইসিআরসির সাথে একটি গতিশীল কাজের সম্পর্ক গড়ে তুলেছি এবং এই অঞ্চলে আমাদের সমকক্ষদের সাথে বিভিন্ন আলোচনায় অংশগ্রহণ করেছি।’

তিনি আরো বলেন, ‘আমরা আশা করছি, অংশগ্রহণকারীরা প্রতিবেশী দেশের অভিজ্ঞতা এবং পর্যবেক্ষণ থেকে শিখবে এবং তাদের নিজস্ব বন্দি সুবিধাগুলো উন্নত করতে অনুপ্রাণিত হবে।’

আইসিআরসির বাংলাদেশের হেড অব ডেলিগেশন ইখতিয়ার আসলানভ বলেন, ‘আইসিআরসি সুষ্ঠুভাবে কারাগার ব্যবস্থাপনা করতে এশীয় প্রশান্ত মহাসাগরীয় দেশগুরোকে একে অপরের অভিজ্ঞতা থেকে উপকৃত হতে উৎসাহিত করে। এ সম্মেলনের মাধ্যমে এ অঞ্চলের বিভিন্ন পর্যায়ের কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আমাদের সম্পর্ক আরো জোরদার হবে এবং বন্দিদের জয়ে আমাদের কাজ পরিচালনা সহজতর হবে।’

১৪০ বছরের বেশি সময় ধরে আইসিআরসি ৯০ টিরও বেশি দেশে কারাবন্দিদের পরিদর্শন কার্যক্রম পরিচালনা করছে। এ কার্যক্রম সম্পূর্ণভাবে মানবিক উদ্দেশ্যে পরিচালিত। বন্দিদের শারীরিক ও মানসিক কল্যাণ সাধন এবং তাদের চিকিৎসা ও বন্দিত্বের পরিবেশ যাতে আন্তর্জাতিক মানবিক আইন ও আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত অন্যান্য মানদণ্ড অনুযায়ী হয় তা নিশ্চিত করা। এ ছাড়া আইসিআরসি কারাগারেরর পরিবেশের উন্নয়ন এবং কারাবন্দি ও তাদের পরিবারের মধ্যে যোগাযোগ রক্ষা করতে কাজ করে।

এ সময় অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সুরক্ষা সেবা বিভাগের সচিব ফরিদ উদ্দিন আহমেদ চৌধুরী। সম্মেলনটি আগামী ১৯ মে পর্যন্ত চলবে।

Post A Comment: