বাগেরহাটের পূর্ব সুন্দরবনের চাঁদপাই রেঞ্জের ধানসাগর স্টেশনের নাংলী এলাকায় আবারও অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। শুক্রবার সকাল ৯টার দিকে লাগা আগুন প্রচণ্ড তাপদাহের কারণে দ্রুত চারদিকে ছড়িয়ে পড়ে। এতে প্রায় ৪ একর বনভূমির গাছ-পালা (গুল্ম জাতীয় লতা-পাতা-গাছপালা) পুড়ে গেছে। বেলা ১১টার দিকে আগুন লাগার খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছে আগুন নেভানোর চেষ্টা চালায় স্থানীয় প্রশাসন, বন বিভাগ, ফায়ার সার্ভিস ও এলাকাবাসী। সন্ধ্যা ৬টার দিকে আগুন নেভানো সম্ভব হয় বলে বাগেরহাট পূর্ব সুন্দরবন বিভাগের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা (ডিএফও) মো. সাইদুল ইসলাম জানান।
আগুনে পুড়লো সুন্দরবনের ৪ একর ভূমির গাছপালা

    বাগেরহাটের পূর্ব সুন্দরবনের চাঁদপাই রেঞ্জের ধানসাগর স্টেশনের নাংলী এলাকায় আবারও অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। শুক্রবার সকাল ৯টার দিকে লাগা আগুন প্রচণ্ড তাপদাহের কারণে দ্রুত চারদিকে ছড়িয়ে পড়ে। এতে প্রায় ৪ একর বনভূমির গাছ-পালা (গুল্ম জাতীয় লতা-পাতা-গাছপালা) পুড়ে গেছে। বেলা ১১টার দিকে আগুন লাগার খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছে আগুন নেভানোর চেষ্টা চালায় স্থানীয় প্রশাসন, বন বিভাগ, ফায়ার সার্ভিস ও এলাকাবাসী। সন্ধ্যা ৬টার দিকে আগুন নেভানো সম্ভব হয় বলে বাগেরহাট পূর্ব সুন্দরবন বিভাগের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা (ডিএফও) মো. সাইদুল ইসলাম জানান।


পূর্ব সুন্দরবনের চাঁদপাই রেঞ্জের ধানসাগর স্টেশন অফিসার মো. হুমায়ুন কবির জানান, ধানসাগর স্টেশনের নাংলী ক্যাম্পের ‘মাদ্রাসার ছিলা’ এলাকায় শুক্রবার সকালে আগুন লাগে। দুপুর পর্যন্ত বনের প্রায় ২/৩ একর জায়গা জুড়ে আগুন দেখা যায়। আগুন নিয়ন্ত্রণের জন্য শরণখোলা ও মোরেলগঞ্জ উপজেলা ফায়ার সার্ভিসের দুটি ইউনিট ঘটনাস্থলে আসে। এ ছাড়া স্থানীয় শতাধিক লোকজন আগুন নেভানোর কাজে বন বিভাগ ও ফায়ার সার্ভিস সদস্যদের সহায়তা করেন। ধারণা করা হচ্ছে অগ্নিকাণ্ডে ইতোমধ্যে বনের প্রায় ৪ একর ভূমির গাছ-পালা পুড়ে গেছে। এখনও শুধু ধোঁয়া দেখা যাচ্ছে প্রায় ২ একর বনভূমি জুড়ে।

এদিকে অগ্নিকাণ্ডের খবর জানার পর ঘটনাস্থলে ছুটে যান বাগেরহাট পূর্ব সুন্দরবন বিভাগের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা (ডিএফও) মো. সাইদুল ইসলাম, বাগেরহাট সদর ও চাঁদপাই রেঞ্জের দায়িত্বপ্রাপ্ত এসিএফ মেহেদিজ্জামান, শরণখোলা উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. আলিফ রেজা। তবে কীভাবে আগুন লেগেছে কিংবা এটা নাশকতা কিনা সে বিষয়ে আপাতত কোনো কিছু না বলে মূল ঘটনা ও রহস্য উদঘাটনে চেষ্টা চালানো হচ্ছে বলে ঘটনাস্থলে থাকা এ বন কর্মকর্তারা জানান।

আগুন পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণে দাবি করে বিভাগীয় বন কর্মকর্তা মো. সাঈদুল ইসলাম জানান, ধানসাগর স্টেশনের নাংলী ক্যাম্পের ‘মাদ্রাসার ছিলা’ এলাকায় অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় ৩ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। চাঁদপাই রেঞ্জের সহকারী বন সংরক্ষক মো. মেহেদ্দীজ্জামানকে প্রধান করে এ কমিটি গঠন করা হয়। কমিটির অপর দুই সদস্য হলেন—ঢাংমারি রেঞ্জের স্টেশন কর্মকর্তা মিজানুর রহমান ও চাঁদপাই রেঞ্জের স্টেশন কর্মকর্তা নুরুজ্জামান। গঠিত কমিটিকে আগামী ৭ কার্যদিবসের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করতে বলা হয়েছে বলে জানান তিনি।

২০১৬ সালে চাঁদপাই রেঞ্জের ধানসাগর স্টেশনের বিভিন্ন এলাকায় নাশকতামূলক চার বার অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটে। এর মধ্যে ২৭ মার্চ ধানসাগর স্টেশনের নাংলী ক্যাম্পের সিকদারের ছিলায়, ১৩ এপ্রিল পঁচা কোরালিয়া বিলে, ১৮ এপ্রিল আব্দুল্লাহর ছিলায় এবং সর্বশেষ ওই বছরের ২৭ এপ্রিল তুলতলার বিলে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। ২০১৬ সালে এক মাসে চার বার অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় প্রভাবশালী কিছু ব্যক্তির নাম উল্লেখসহ ১৮ জনকে আসামি করে শরণখোলা থানা ও বাগেরহাট আদালতে ৩টি মামলা করে সুন্দরবন বিভাগ।

Post A Comment: