রিয়াল মাদ্রিদের কোচ হিসেবে যোগদানের পরই বাজিমাত করেন জিনেদিন জিদান। প্রথম বছরেই তিনটি শিরোপা জয়ের স্বাদ পান তিনি। উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগ, সুপার কাপ এবং জাপানে ফিফা ক্লাব বিশ্বকাপে চ্যাম্পিয়ন হয়েই বছর শেষ করেন ফরাসি ফুটবলের এই জীবন্ত কিংবদন্তি। কিন্তু চলতি বছরে এখনও কোন ট্রফির ছোঁয়া পাননি জিনেদিন জিদান। স্প্যানিশ লা লিগার শিরোপা পুনরুদ্ধারের দারুণ সম্ভাবনা জাগালেও এখন তা নিয়েও তৈরি হয়েছে সংশয়! বিশেষ করে সর্বশেষ এল ক্লাসিকোতে বার্সেলোনার কাছে হারের পর। কেননা বর্তমানে স্পেনের দুই জায়ান্ট ক্লাবেরই পয়েন্ট সমান ৭৫। যদিও বার্সেলোনার চেয়ে একটি ম্যাচ কম খেলেছে রিয়াল মাদ্রিদ।



রিয়াল মাদ্রিদের কোচ হিসেবে যোগদানের পরই বাজিমাত করেন জিনেদিন জিদান। প্রথম বছরেই তিনটি শিরোপা জয়ের স্বাদ পান তিনি। উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগ, সুপার কাপ এবং জাপানে ফিফা ক্লাব বিশ্বকাপে চ্যাম্পিয়ন হয়েই বছর শেষ করেন ফরাসি ফুটবলের এই জীবন্ত কিংবদন্তি।

কিন্তু চলতি বছরে এখনও কোন ট্রফির ছোঁয়া পাননি জিনেদিন জিদান। স্প্যানিশ লা লিগার শিরোপা পুনরুদ্ধারের দারুণ সম্ভাবনা জাগালেও এখন তা নিয়েও তৈরি হয়েছে সংশয়! বিশেষ করে সর্বশেষ এল ক্লাসিকোতে বার্সেলোনার কাছে হারের পর। কেননা বর্তমানে স্পেনের দুই জায়ান্ট ক্লাবেরই পয়েন্ট সমান ৭৫। যদিও বার্সেলোনার চেয়ে একটি ম্যাচ কম খেলেছে রিয়াল মাদ্রিদ।

এদিকে চ্যাম্পিয়ন্স লিগেও শিরোপা ধরে রেখে ইতিহাস গড়তে পারবে কী না তা নিয়েও রয়েছে সন্দেহ। কারণ এবার সেমিফাইনালেই মুখোমুখি হতে হচ্ছে তাদের নগরপ্রতিদ্বন্দ্বী অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদের। যারা আগে দুইবার ফাইনাল হারায় এবার শিরোপা জিততে মরিয়া। অন্যদিকে অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদের বাঁধা পার হলেও ফাইনালে দেখা যেতে পারে জুভেন্টাসকে। যারা এবার শুরু থেকেই অপ্রতিরোধ্য! বার্সেলোনাকে বিদায় করেই শেষ চারে জায়গা করে নিয়েছে যারা। ইতালিয়ান সিরি’এ লিগেও টানা ২৩ ম্যাচে অপরাজিত ম্যাসিমিলিয়ানো অ্যালেগ্রির দল।

তাই লা লিগা আর চ্যাম্পিয়ন্স লিগের শিরোপা যদি জিততে নাই পারেন তাহলে কী আসলেই বরখাস্তের শিকার হবেন জিনেদিন জিদান? বিভিন্ন প্রতিবেদনে অবশ্য বরখাস্ত হওয়ার শঙ্কার কথাই জানানো হয়েছে। এর পেছনে তাদের যুক্তিও রয়েছে। সবসময়ই বেল-বেনজেমা-ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোকে (বিবিসি) নিয়ে খেলার মানসিকতা তার মধ্যে অন্যতম। সর্বশেষ এল ক্লাসিকোতেও দেখা গেল যা, ইনজুরি থেকে পুরোপুরি ফিট হতে না হতেই গ্যালেথ বেলকে খেলানোর সুযোগ করে দিলেন তিনি। যার মাশুল দিতে হয়েছে জিদানকে। ড্রেসিংরুমেও রয়েছে অস্থিরতা! জেমস রদ্রিগেজ, ইস্কো এবং আলভারো মোরাতা- মূলত জিজুর নীতির কারণেই মৌসুমের শুরু থেকে বেশির ভাগ সময়ই মাঠের বাইরে থাকতে হয়েছে তাদের।

সর্বশেষ এল ক্লাসিকোর ভুল! বেলকে শুরু থেকেই খেলানোর সিদ্ধান্ত। ইস্কোকে না নামিয়ে পরবর্তীতে সুযোগ দিলেন মার্কো অ্যাসেনসিওকে। এরপর ২-২ ব্যবধানে ড্র করার পরও আক্রমণে গিয়ে জেতার মানসিকতা। যা তাদের মোটেই প্রয়োজন ছিল না। শেষ দিকে রক্ষণাত্মক খেলে ড্র করতে পারলেও লা লিগার শিরোপার দৌড়ে বার্সেলোনা এতোটা এগিয়ে আসতে পারতো না!

মূলত এসব কিছুর জন্যই কোচ পরিবর্তনের শঙ্কা তৈরি হয়েছে রিয়ালের। তবে জিদান কোন শিরোপা জিততে না পারলেও তাকে বরখাস্ত করাটাকে অন্যায় হবে বলে মনে করছেন টেরি গিবসন।

এ প্রসঙ্গে সাবেক এই ইংলিশ ফরোয়ার্ড বলেন, ‘রিয়াল মাদ্রিদ যদি কোন শিরোপা জিততে নাই পারে তাহলেই প্রশ্নটা উঠবে-রিয়াল মাদ্রিদে থাকছেন তো জিদান? তবে কোন কিছু না ভেবেই আমি বলবো অবশ্যই, তাকে রাখা উচিত। কোন শিরোপা না জেতার অযুহাতে যদি জিদানকে বরখাস্ত করে তাহলে সেটা হবে অনেক বড় অন্যায়। আমি মনে করি না এটা তাদের ভালো সিদ্ধান্ত হবে। কোচ হিসেবে সে নতুন আর প্রথম কোচ হিসেবেই সে যা করেছে তা সত্যিই অনেক বড় অর্জন।’

রিয়াল তাকে প্রকৃতপক্ষেই বরখাস্ত করবে কী না তার উত্তর এখন সময়ের হাতে। তবে জিদানের দৃষ্টি এখন নিঃসন্দেহেই প্রথম কোচ হিসেবে টানা দুইবার চ্যাম্পিয়ন্স লিগ জয়ের হাতছানি। সেইসঙ্গে লা লিগার শিরোপা পুনরুদ্ধারেরও।

সূত্র : স্কাইস্পোর্টস

Post A Comment: