ওজন কমানোর জন্য ডায়েট করছেন? তাহলে নিশ্চয় ওটস আপনাদের খাদ্যতালিকায় রয়েছে। বিস্বাদ ওটস খেতে অনেকে পছন্দ করেন না। সকালের নাস্তায় দুধ এবং ফলের সাথে ওট খাওয়াটা খুব সাধারণ বিষয়। দুধ ছাড়াও একটু ভিন্নভাবে খাওয়া সম্ভব ওট। বিস্বাদ ওটস দিয়ে তৈরি করে ফেলুন মজাদার ওট চাপাতি। মজাদার এই রেসিপিটি জেনে নিন।


ওজন কমানোর জন্য ডায়েট করছেন? তাহলে নিশ্চয় ওটস আপনাদের খাদ্যতালিকায় রয়েছে। বিস্বাদ ওটস খেতে অনেকে পছন্দ করেন না। সকালের নাস্তায় দুধ এবং ফলের সাথে ওট খাওয়াটা খুব সাধারণ বিষয়। দুধ ছাড়াও একটু ভিন্নভাবে খাওয়া সম্ভব ওট। বিস্বাদ ওটস দিয়ে তৈরি করে ফেলুন মজাদার ওট চাপাতি। মজাদার এই রেসিপিটি জেনে নিন।

উপকরণ:
_  ১/২ কাপ ভাজা ওটস
_  ১/২ কাপ সুজি
_  ১ চা চামচ সরিষা
_  ১ চা চামচ ঘি
_  ১/৪ চা চামচ হিং
_  ১/৪ চা চামচ হলুদের গুঁড়ো
_  ১/৪ চা চামচ মরিচের গুঁড়ো
_  ১/২ চা চামচ ধনিয়া
_  ১টি কাঁচা মরিচ কুচি
_  ২-৩ টেবিল চামচ টকদই
_  ১/২ কাপ লাউ কুচি
_  ১/২টা লেবুর রস
_  ১/২ কাপ পালংশাক কুচি
_  ১টি রসুন কুচি
_  কারিপাতা
_  লবণ

প্রণালী:
একটি প্যানে এক চা চামচ ঘি দিয়ে দিন। এতে সরিষা, কারিপাতা, হিং এবং এক কাপ সুজি দিয়ে দুই মিনিট ভাজুন। সুজির রং পরিবর্তন হয়ে এলে এতে ওটসের গুঁড়ো দিয়ে  এক মিনিট ভাজুন। এটি একটি পাত্রে নামিয়ে রাখুন। এরসাথে বেসন, মরিচ গুঁড়ো, হলুদ গুঁড়ো, জিরা, ধনিয়া গুঁড়ো এবং কাঁচা মরিচ কুচি, রসুন কুচি, লবণ দিয়ে ভালো করে মেশান। এরপর এতে গাজর কুচি, পালং শাক কুচি, লাউ কুচি, টকদই, লেবুর রস এবং পরিমাণ মতো পানি দিয়ে মিশ্রণ তৈরি করুন। চুলায় প্যান গরম হয়ে এলে এতে কিছুটা ঘি দিয়ে দিন। এবার এতে মিশ্রণটি দিয়ে ছোট রুটি বা চাপাতির মতো দিয়ে দিন। চাপাতির উপর কিছুটা ঘি দিয়ে দিতে পারেন। বাদামী রং হয়ে এলে নামিয়ে ফেলুন।

ব্যস তৈরি হয়ে গেলো মজাদার ওটস চাপাতি।

Post A Comment: