আয়ারল্যান্ডে ত্রিদেশীয় সিরিজ ও ইংল্যান্ডের মাটিতে চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিকে সামনে রেখে বাংলাদেশের স্কোয়াড ঘোষণা করা হবে ১৯ এপ্রিল। কিন্তু তার আগেই দল নিয়ে প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদিন নান্নু ইঙ্গিত দিলেন, একজন বাড়তি পেসারের কথা ভাবছেন তারা। এ ইঙ্গিতে বোঝা যাচ্ছে ছয় পেসার নিয়েই এবার দল ঘোষণা করবেন নির্বাচকরা।



আয়ারল্যান্ডে ত্রিদেশীয় সিরিজ ও ইংল্যান্ডের মাটিতে চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিকে সামনে রেখে বাংলাদেশের স্কোয়াড ঘোষণা করা হবে ১৯ এপ্রিল। কিন্তু তার আগেই দল নিয়ে প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদিন নান্নু ইঙ্গিত দিলেন, একজন বাড়তি পেসারের কথা ভাবছেন তারা। এ ইঙ্গিতে বোঝা যাচ্ছে ছয় পেসার নিয়েই এবার দল ঘোষণা করবেন নির্বাচকরা।

ঢাকা প্রিমিয়ার লিগের খেলা দেখতে বুধবার সাভারের বিকেএসপিতে উপস্থিত হন নান্নু। সেখানে সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমরা আগামী ১৯ এপ্রিল চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি ও আয়ারল্যান্ডে তিন জাতি ক্রিকেট টুর্নামেন্টের জন্য দল ঘোষণা করবো। দলে তেমন কোনো পরিবর্তন না থাকলেও কন্ডিশনের কথা বিবেচনা করে একজন বাড়তি পেসার ও একজন অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যান দলে নেয়ার বিষয়ে চিন্তা-ভাবনা রয়েছে।'

সম্প্রতি শেষ হওয়া শ্রীলঙ্কা সফরে বাংলাদেশ স্কোয়াডে ছিলেন পাঁচ পেসার। অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজার সঙ্গে ছিলেন তাসকিন আহেমদ, মুস্তাফিজুর রহমান, শুভাশিষ রায় ও রুবেল হোসেন। কিন্তু ইংল্যান্ড ও আয়ারল্যান্ডের সিমিং উইকেটের কথা চিন্তা করে আরও একজন পেসার অন্তর্ভূক্তির কথা ভাবছে টিম ম্যানেজমেন্ট। সেক্ষেত্রে তাদের প্রাথমিক বিবেচনায় রয়েছেন শফিউল ইসলাম ও পেস অলরাউন্ডার সাইফউদ্দিন।

প্রধান নির্বাচক বলেন, ‘সামনে পর পর দুটি সিরিজ। খেলোয়াড়দের ইনজুরিতে পড়ার শঙ্কাও থাকে। তার চেয়ে বড় কথা হলো পারফরম্যান্সের ওঠা-নামারও ব্যাপার আছে। আমরা প্রিমিয়ার লিগে চোখ রাখছি। অভিজ্ঞ একজন ব্যাটসম্যান খুঁজছি। কারণ ইংল্যান্ডের কন্ডিশনে অভিজ্ঞরা বরাবরই ভালো করে। নতুনদের সেখানে মানিয়ে নেয়া কঠিন। বাড়তি ক্রিকেটারদের মধ্যে একজন করে পেসার ও ব্যাটসম্যান রাখার কথা আমরা ভাবছি।’

ইংল্যান্ডের পরিবেশের সঙ্গে খাপ খাওয়ানোর লক্ষ্যে অনুশীলন ক্যাম্পের জন্য আগামী ২৬ এপ্রিল দেশ ছাড়ার কথা রয়েছে বাংলাদেশ দলের। ১২ মে থেকে আয়ারল্যান্ডের মাটিতে নিউজিল্যান্ডকে সঙ্গে নিয়ে শুরু হবে ত্রিদেশীয় সিরিজ। এরপর এক জুন থেকে শুরু হবে আটটি টেস্ট খেলুড়ে দেশ নিয়ে চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি।  


Post A Comment: