সুসং দূর্গাপুরের সোমেশ্বরী নদীর চোখ ধাঁধানো নীল রঙ দেখে কার না যেতে ইচ্ছা করে? এই নীল রঙ কিন্তু সারা বছর থাকে না! থাকে শুধু শীতকালে। আর এবারের শীতে দূর্গাপুর যাওয়া মিস করেছেন তো নীল এই নদী দেখতে পাবেন আবার বছরের শেষে। তাই টলটলে আয়নার মতো জলের নদী দেখতে বেড়িয়ে পড়ুন শীঘ্রই। দূর্গাপুরের আকর্ষণ অবশ্য একমাত্র সোমেশ্বরী নয়। এখানে আছে বিজয়পুর চীনামাটির খনি, রানীখং গির্জা, কমল রানীর দীঘি, গারো পাহাড়, সেন্ট যোসেফের গির্জা। সবকিছু মিলিয়েই দূর্গাপুর অনন্য। যদিও জায়গাটি বিরিশিরি নামে বেশি খ্যাত, কিন্তু বিরিশিরি আসলে নেত্রকোণা জেলার দূর্গাপুর থানার একটি ইউনিয়ন। দর্শনীয় জায়গাগুলো ছড়িয়ে আছে দূর্গাপুরেই।
সোমেশ্বরী নদী


  সুসং দূর্গাপুরের সোমেশ্বরী নদীর চোখ ধাঁধানো নীল রঙ দেখে কার না যেতে ইচ্ছা করে? এই নীল রঙ কিন্তু সারা বছর থাকে না! থাকে শুধু শীতকালে। আর এবারের শীতে দূর্গাপুর যাওয়া মিস করেছেন তো নীল এই নদী দেখতে পাবেন আবার বছরের শেষে। তাই টলটলে আয়নার মতো জলের নদী দেখতে বেড়িয়ে পড়ুন শীঘ্রই।

দূর্গাপুরের আকর্ষণ অবশ্য একমাত্র সোমেশ্বরী নয়। এখানে আছে বিজয়পুর চীনামাটির খনি, রানীখং গির্জা, কমল রানীর দীঘি, গারো পাহাড়, সেন্ট যোসেফের গির্জা। সবকিছু মিলিয়েই দূর্গাপুর অনন্য। যদিও জায়গাটি বিরিশিরি নামে বেশি খ্যাত, কিন্তু বিরিশিরি আসলে নেত্রকোণা জেলার দূর্গাপুর থানার একটি ইউনিয়ন। দর্শনীয় জায়গাগুলো ছড়িয়ে আছে দূর্গাপুরেই।

শীতে যেমন সোমেশ্বরী অনন্য তেমনি ভরা বর্ষায় দেখা যায় এর ভিন্ন আরেক রূপ। পাহাড়ি ঝর্ণার জলে টুইটুম্বুর নদীর সৌন্দর্য্যই আলাদা। 

সুসং দূর্গাপুর


এখানকার অধিবাসীরা মূলত গারো, হাজং ইত্যাদি নৃগোষ্ঠীর। এখানে আছে পাহাড়ি কালচারাল একাডেমি। টুংকা বিপ্লবের স্মৃতিস্তম্ভের দেখা পাবেন, জানতে পারবেন পাহাড়িদের আন্দোলনের গল্প। হাজং ভাষায় তেভাগা আন্দোলনের আরেক নাম টুংকা বিপ্লব। তেভাগা আন্দোলনের নেতা মনি সিংহের আবক্ষ মূর্তিটি দেখতে ভুলবেন না!

আলাদা আলাদাভাবে একেক দিকে না গিয়ে একটি মোটরসাইকেল ভাড়া নিতে পারেন। এটি দর্শনীয় সব জায়গায় নিয়ে যাবে আপনাকে।
ভাড়া: ৮০০ থেকে ১২০০ টাকা। 


কীভাবে যাবেন:
ঢাকার মহাখালি বাসস্ট্যান্ড থেকে জিনাত পরিবহণ যায়। সারাদিনই কিছু সময় অন্তর অন্তর গাড়ি ছেড়ে যায়। ভাড়া দিনে ৩০০ টাকা আর রাতে ৪০০ টাকা। 
কোথায় থাকবেন:
বিরিশিরি কালচারাল একাডেমির নিজস্ব রেস্ট হাউজ আছে। ওখানে থাকতে পারেন। আবার ওয়াইএমসিএ এর গেস্ট হাউজেও থাকতে পারেন। যোগাযোগ নম্বর- ০১৭১২০৪২৯১৬। ভাড়া: এসি - ১২০০ টাকা, নন এসি- ৮০০ টাকা। স্বর্ণা গেস্ট হাউজেও থাকার ব্যবস্থা আছে। যোগাযোগ নম্বর- ০১৭১৭০৩৩৯৯৮। ভাড়া: ডাবল বেড- ৫০০ টাকা। আগে যোগাযোগ করে যাওয়াই ভাল।  

Post A Comment: