যুক্তরাষ্ট্রের পর এবার যুক্তরাজ্যে সরকার বিমানের ক্যাবিন ব্যাগেজে ল্যাপটপ ও ট্যাবলেট বহনের ব্যাপারে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে। তুরস্ক, লেবানন, জর্ডান, মিশর, তিউনিসিয়া ও সৌদি আরব থেকে যুক্তরাজ্যে সরাসরি ফ্লাইটের মূল কেবিনে স্মার্টফোনের চেয়ে বড় ইলেকট্রনিক ডিভাইস বহন করা যাবে না বলে জানিয়েছে ডাউনিং স্ট্রিট। ১৯ সে.মি. এর চেয়ে লম্বা, ৯.৩ সে.মি. এর চেয়ে প্রশস্ত এবং ১.৫ সে.মি. এর চেয়ে বেশি পুরুত্বের ইলেকট্রনিক ডিভাইস এই নিষেধাজ্ঞার আওতায় পড়বে। ওইসব দেশ থেকে আসা এয়ারলাইন্সকে এই সিদ্ধান্ত কার্যকর করতে চারদিন সময় দেয়া হয়েছে।


 যুক্তরাষ্ট্রের পর এবার যুক্তরাজ্যে সরকার বিমানের ক্যাবিন ব্যাগেজে ল্যাপটপ ও ট্যাবলেট বহনের ব্যাপারে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে। তুরস্ক, লেবানন, জর্ডান, মিশর, তিউনিসিয়া ও সৌদি আরব থেকে যুক্তরাজ্যে সরাসরি ফ্লাইটের মূল কেবিনে স্মার্টফোনের চেয়ে বড় ইলেকট্রনিক ডিভাইস বহন করা যাবে না বলে জানিয়েছে ডাউনিং স্ট্রিট। 

১৯ সে.মি. এর চেয়ে লম্বা, ৯.৩ সে.মি. এর চেয়ে প্রশস্ত এবং ১.৫ সে.মি. এর চেয়ে বেশি পুরুত্বের ইলেকট্রনিক ডিভাইস এই নিষেধাজ্ঞার আওতায় পড়বে। ওইসব দেশ থেকে আসা এয়ারলাইন্সকে এই সিদ্ধান্ত কার্যকর করতে চারদিন সময় দেয়া হয়েছে।


ব্রিটিশ সরকার বলছে, বিমান যাত্রীদের নিরাপত্তার জন্যই এই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। আর মার্কিন সরকার বলছে, সন্ত্রাসী গোষ্ঠীগুলো যাত্রীবাহী বিমানকে ইদানীং অনেক বেশি টার্গেট করছে বলে তাদের কাছে গোয়েন্দা তথ্য রয়েছে।

হোয়াইট হাউজের মুখপাত্র শন স্পাইসার বলেছেন, ‘গোয়েন্দা তথ্য থেকে জানা যাচ্ছে, সন্ত্রাসী গোষ্ঠীগুলো বাণিজ্যিক বিমানগুলোকে টার্গেট করতে নানা রকম নতুন উদ্ভাবনী কায়দা ব্যবহার করছে। এ বিষয়ে গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতেই এমন সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।’


সূত্র: বিবিসি


Post A Comment: