তার ব্যাটিং ঝড়ের কথা অনেকেরই জানা। আন্তর্জাতিক অনেক ম্যাচেই বোলিংয়ের পাশাপাশি ব্যাট হাতেও ঝড় তুলেছেন বাংলাদেশের সংক্ষিপ্ত ফরম্যাটের অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা। এবার মাশরাফির ব্যাটিং ঝড়ের কবলে শ্রীলঙ্কা বোর্ড প্রেসিডেন্ট একাদশ। মাত্র ৩৫ বলে খেললেন ৫৮ রানের ঝড়ো এক ইনিংস। যদিও শেষটা রঙিন হয়নি। রুদ্ধশ্বাস প্রস্তুতি ম্যাচে মাশরাফির বিদায়ের পর বাংলাদেশও ম্যাচ হেরেছে মাত্র দুই রানে। তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজের আগে বুধবার বাংলাদেশের বিপক্ষে একদিনের প্রস্তুতি ম্যাচ খেলতে নেমেছিলো দিলশান মুনাবিরা, থিসারা পেরেরা, চতুরঙ্গ সি সিলভাদের নিয়ে গড়া শ্রীলঙ্কা বোর্ড প্রেসিডেন্ট একাদশ। যে ম্যাচে বাংলাদেশের বোলারদের ওপর দিয়ে রীতিমতো টর্নেডো বইয়ে দেন প্রেসিডেন্টস একাদশের ব্যাটসম্যানরা।


তার ব্যাটিং ঝড়ের কথা অনেকেরই জানা। আন্তর্জাতিক অনেক ম্যাচেই বোলিংয়ের পাশাপাশি ব্যাট হাতেও ঝড় তুলেছেন বাংলাদেশের সংক্ষিপ্ত ফরম্যাটের অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা। এবার মাশরাফির ব্যাটিং ঝড়ের কবলে শ্রীলঙ্কা বোর্ড প্রেসিডেন্ট একাদশ। মাত্র ৩৫ বলে খেললেন ৫৮ রানের ঝড়ো এক ইনিংস। যদিও শেষটা রঙিন হয়নি। রুদ্ধশ্বাস প্রস্তুতি ম্যাচে মাশরাফির বিদায়ের পর বাংলাদেশও ম্যাচ হেরেছে মাত্র দুই রানে।  

তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজের আগে বুধবার বাংলাদেশের বিপক্ষে একদিনের প্রস্তুতি ম্যাচ খেলতে নেমেছিলো দিলশান মুনাবিরা, থিসারা পেরেরা, চতুরঙ্গ সি সিলভাদের নিয়ে গড়া শ্রীলঙ্কা বোর্ড প্রেসিডেন্ট একাদশ। যে ম্যাচে বাংলাদেশের বোলারদের ওপর দিয়ে রীতিমতো টর্নেডো বইয়ে দেন প্রেসিডেন্টস একাদশের ব্যাটসম্যানরা। 

কলম্বো ক্রিকেট ক্লাব গ্রাউন্ডে ৫০ ওভারের প্রস্তুতি ম্যাচে প্রথমে ব্যাট করা প্রেসিডেন্ট একাদশ ৩৫৪ রানের বড় সংগ্রহ দাঁড় করায়। সৌম্য, সাব্বির, মাহমুদউল্লাহ, মাশরাফির ব্যাটে বাংলাদেশও দারুণ জবাব দিয়েছে। বাংলাদেশ হার নিয়ে মাঠ ছাড়লেও আরো একবার বাঘের গর্জন শুনেছে লঙ্কানরা। প্রায় সব ব্যাটসম্যান রানের দেখা পেলেও শেষপর্যন্ত বাংলাদেশের ইনিংস থামে ৩৫২ রানে। 
বল হাতে প্রেসিডেন্ট একাদশের ব্যাটসম্যানদের রোষানলের মুখে পড়লেও ব্যাটিং অনুশীলনটা খারাপ হয়নি বাংলাদেশের। যদিও ৩৫৫ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে শুরুটা ভালো হয়নি বাংলাদেশের। দলের স্কোরকার্ডে কোনো রান যোগ না হতেই বিদায় নেন ইমরুল কায়েস। যদিও ইমরুলের বিদায় দলকে বুঝতেই দেননি সৌম্য সরকার ও সাব্বির রহমান।

দ্বিতীয় উইকেট জুটিতে ১১৬ রান যোগ করেন তারা। এসময় সৌম্য দেখেশুনে খেললেও সাব্বির ব্যাট হাতে বদলা নিতে থাকেন। ৪৭ রান করে থামেন সৌম্য। ৬৩ বলে ১১ চার ও এক ছয়ে ৭২ রান করে কিছুক্ষণ পর সাব্বিরও সাজঘরে ফেরেন। মাঝে মুশফিকুর রহিম ও মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত ভালোই ব্যাট চালিয়েছেন। মুশফিক ২০ রান করলেও মোসাদ্দেক খেলেন ৫৩ রানের দারুণ এক ইনিংস।

মুশফিক, মোসাদ্দেকের পর  দ্রুত আউট হন শুভাগত ও সানজামুলও। এর পরের সময়টা শুধুই অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্জতা ও মাহমুদুল্লাহ রিয়াদের। অষ্টম উইকেটে ১০১ রানের জুটি গড়েন এই দুই ব্যাটসম্যান। এসময় মাশরাফির ব্যাটে ঝড় ওঠে। মাত্র ৩৫ বলে চার চার ও চার ছয়ে ৫৮ রান করে থামেন তিনি। এরপর ৭১ রানে অপরাজিত থাকা মাহমুদউল্লাহ চেষ্টা করেও বাংলাদেশকে জেতাতে পারেননি।   

এরআগে ব্যাট করতে নেমে শুরু থেকেই চড়াও হয়ে খেলতে থাকেন প্রেসিডেন্টস একাদশের দুই ওপেনার দিলশান মুনাবিরা ও কুশল পেরেরা। যদিও এরা বড় জুটি গড়তে পারেনি। দলীয় ৩৬ রানের মাথায় থামতে হয় ২৪ রান করা মুনাবিরাকে। এরপর শুরু হয় পেরেরা ও সানদান বিরাকোডির ব্যাটিং শো। দ্বিতীয় উইকেট জুটিতে ১২৪ রানের জুটি গড়েন তোলেন তারা। এসময় পেরেরা ও বিরাকোডি দু’জনই হাফ সেঞ্চুরি তুলে নেন। 

পেরেরা ৬৪ ও বিরাকোডি ৬৭ রান করেন। পরের ব্যাটসম্যানরাও সমানে ব্যাট চালিয়েছেন। মাশরাফি, তাসকিন, রুবেল, শুভাগতরা তাদের সামনে কোনো বাধাই তৈরি করতে পারেননি। ধনঞ্জয়া ডি সিলভা ৫২ রান করেন। এছাড়া মালিন্দা সিরিবর্ধনে ৩২, চতুরঙ্গ ২৮, থিসারা পেরেরা ৪১ ও ডাসুন সানাকা হার না মানা ২৬ রান করলে সাত উইকেটে ৩৫৪ রানে পৌঁছায় প্রেসিডেন্টস একাদশ। বাংলাদেশের মাশরাফি, তাসকিন, আবুল হাসান ও সানজামুল একটি করে উইকেট নেন।  

বাংলাদেশের বিপক্ষে দ্বিতীয় টেস্ট হেরে সমালোচনার স্তুপে নিক্ষিপ্ত হয়েছিলেন শ্রীলঙ্কার ক্রিকেটাররা। বাংলাদেশের বিপক্ষে হারের কারণে লঙ্কান ক্রিকেটের মুত্যুও ঘোষণা করেছে তাদের একটি সংবাদ মাধ্যম। নড়েচড়ে বসেছে ক্রিকেট শ্রীলঙ্কাও। স্বভাবতই বাংলাদেশের ওপর খেদটা কম ছিলো না লঙ্কান ক্রিকেটারদের। প্রস্তুতি ম্যাচে তাদের ব্যাটিং দেখে যেটা বুঝতে বাকি রইলো না। 

Post A Comment: