সাংবাদিক আব্দুল হাকিম শিমুল হত্যায় ব্যবহৃত সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর পৌর মেয়র হালিমুল হক মীরুর সেই অবৈধ শটগান উদ্ধার করেছে পুলিশ।
ecovered-the-shotgun-used-in-the-killing-of-the-mayor-of-Simul 



সাংবাদিক আব্দুল হাকিম শিমুল হত্যায় ব্যবহৃত সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর পৌর মেয়র হালিমুল হক মীরুর সেই অবৈধ শটগান উদ্ধার করেছে পুলিশ।


ঘটনার ৩৩ দিন পর মঙ্গলবার সকাল ৭টায় মেয়র মীরুর বাড়ির পাশের পুকুর থেকে শটগানটি উদ্ধার করা হয়।

শাহজাদপুর থানা পুলিশের ভারপ্রপ্ত কর্মকর্তা (ওসি, তদন্ত) ও মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মনিরুল ইসলাম জানান, আদালতের নির্দেশে দুই দিনের রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয় মেয়র মীরু ও তার ভাই হাসিবুল হক মিন্টুকে। জিজ্ঞাসাবাদে শিমুল হত্যায় ব্যবহৃত অস্ত্রের কথা স্বীকার করেন মিন্টু। পরে তার দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে মেয়রের বাড়ির পাশে পুকুর থেকে অস্ত্রটি উদ্ধার করা হয়।

এর আগে গত ২০ ফেব্রুয়ারি সাংবাদিক শিমুল হত্যা মামলার পৌর মেয়র মীরু ও তার ভাই মিন্টুকে পুনরায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য সাত দিনের রিমান্ড আবেদন করা হয়। পরে বিচারক নজরুল ইসলাম তাদের দুই দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। পুলিশ সোমবার তাদের রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করলে অস্ত্রের কথা স্বীকার করে মিন্টু। সেই তথ্যের আলোকে মঙ্গলবার সকালে তাদের বাড়ি পাশের একটি পুকুর থেকে অস্ত্রটি উদ্ধার করলো পুলিশ।

প্রসঙ্গত, গত ২ ফেব্রুয়ারি ছাত্রলীগ নেতা বিজয় মাহমুদকে মেয়র মীরুর পিন্টু মেয়রের বাড়িতে তুলে নিয়ে হাত-পা ভেঙে দেয়। এ খবর ছড়িয়ে পড়লে ছাত্রলীগের নেতাকর্মী ও বিজয়ের স্বজনরা মেয়রের বাসার সামনে মিছিল নিয়ে গিয়ে ইটপাটকেল ছোড়ে। এসময় মেয়র মীরু ও তার ভাই মিন্টু শটগান দিয়ে গুলি ছুড়তে থাকে। একপর্যায়ে শটগানের গুলিতে সেখানে কর্তব্যরত দৈনিক সমকালের শাহজাদপুর প্রতিনিধি শিমুল গুলিবিদ্ধ হন। প্রথমে তাকে বগুড়া ও পরের দিন উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় নেয়ার পথে তিনি মারা যান।

এ ঘটনায় সাংবাদিক শিমুলের স্ত্রী নুরুন্নাহার বেগম বাদী হয়ে পৌর মেয়র মীরুকে প্রধান আসামী করে ১৮জন নামীয়সহ অজ্ঞাত আরো ২০/২৫ জনের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা দায়ের করেন। এ মামলায় শাহজাদপুর পৌর মেয়র হালিমুল হক মীরু, তার ভাই পাবনা জেলা জাসদের সাবেক সাধারণ সম্পাদক হাবিবুল হক মিন্টুসহ ১৩ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

Post A Comment: