বিদেশ থেকে বাংলাদেশে সিম কার্ড এবং স্মার্টকার্ডের মৌলিক কাঁচামাল আমাদানির ওপর বিশেষ ব্যবস্থায় ২৪ শতাংশ শুল্ক মওকুফ করেছে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর)। রাজস্ব বোর্ড গত ২ মার্চ এ সংক্রান্ত একটি প্রজ্ঞাপন জারি করেছে। এতে বলা হয়, শুধুমাত্র ভ্যাট-রেজিস্ট্রাড কোম্পানি এই সুবিধা ভোগ করতে পারেব। সিম কার্ড এবং স্মার্টকার্ডের মৌলিক কাঁচামাল আমাদানির ওপর ২৫ শতাংশ থেকে ১৫ শতাংশ কাস্টমস শুল্ক কমানো হয়েছে, ১০ শতাংশ সম্পূরক শুল্ক এবং ৪ শতাংশ রেগুলেটরি শুল্ক প্রত্যাহার করেছে এনবিআর। তবে এসব ম্যাটারিয়ালস ২০ সেন্টিমিটার অনধিক প্রস্থ হতে হবে।

  বিদেশ থেকে বাংলাদেশে সিম কার্ড এবং স্মার্টকার্ডের মৌলিক কাঁচামাল আমাদানির ওপর বিশেষ ব্যবস্থায় ২৪ শতাংশ শুল্ক মওকুফ করেছে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর)। রাজস্ব বোর্ড গত ২ মার্চ এ সংক্রান্ত একটি প্রজ্ঞাপন জারি করেছে। এতে বলা হয়, শুধুমাত্র ভ্যাট-রেজিস্ট্রাড কোম্পানি এই সুবিধা ভোগ করতে পারেব।

সিম কার্ড এবং স্মার্টকার্ডের মৌলিক কাঁচামাল আমাদানির ওপর ২৫ শতাংশ থেকে ১৫ শতাংশ কাস্টমস শুল্ক কমানো হয়েছে, ১০ শতাংশ সম্পূরক শুল্ক এবং ৪ শতাংশ রেগুলেটরি শুল্ক প্রত্যাহার করেছে এনবিআর। তবে এসব ম্যাটারিয়ালস ২০ সেন্টিমিটার অনধিক প্রস্থ হতে হবে। 

ভ্যাট-রেজিস্ট্রাড আমদানিকারকরা এখন থেকে কাস্টমস শুল্ক হিসেবে শুধু ১৫ শতাংশ ভ্যাট এবং ৫ শতাংশ অ্যাডভান্স ইনকাম ট্যাক্স দেবে। তবে সাধারণ আমদানিকারকরা আগের মতোই ট্যাক্স এবং অন্যান্য শুল্ক দেবে, যা ৭৫ শতাংশ ছিল। 

এ ব্যাপারে এনবিআর-এর একজন কর্মকর্তা বলছেন, বাংলাদেশের স্থানীয় উতপা সিল্কওয়ে কার্ড অ্যান্ড প্রিন্টিং লিমিটেড এই সুবিধা পাবে, যারা বাংলাদেশে বিভিন্ন ধরনের স্মার্টকার্ড তৈরি করে থাকে। তিনি আরও বলেন, এই শুল্ক মওকুফের ফলে বাংলাদেশে সিম কার্ড ও বিভিন্ন ধরনের স্মার্টকার্ড এবং ব্যাংকের ক্রেডিট ও ডেবিট কার্ড উৎপাদনে খরচ অনেক কমে আসবে। 

প্রসঙ্গত, ২০১৬-২০১৭ অর্থবছরের বাজেটে সিম কার্ড, স্ক্র্যাচ কার্ড, ক্রেডিট কার্ড ও বিভিন্ন ধরণের স্মার্ট কার্ড উৎপাদনে শুল্ক কমানোর প্রস্তাব করা হয়েছিল। তখন বলা হয়েছিল, উল্লিখিত খাতে ২৫ শতাংশ ভ্যাট আছে এবং প্রস্তাবিত বাজেটে সেটি ১০ শতাংশ কমিয়ে ১৫ শতাংশ করা হয়েছে।

Post A Comment: