সবাই চান তার ঘরটি সুন্দর আকর্ষণীয় করে তুলতে। ঘর সুন্দর করে সাজানো গেলেও রান্নাঘরকে সাজানো অনেকের কাছে কঠিন মনে হয়। এই রান্নাঘরকে সুন্দর আকর্ষণীয় করে তোলা সম্ভব সহজ কিছু উপায়ে। রান্নাঘর সাজানোর সময় মাথায় রাখুন এই বিষয়গুলো।


সবাই চান তার ঘরটি সুন্দর আকর্ষণীয় করে তুলতে। ঘর সুন্দর করে সাজানো গেলেও রান্নাঘরকে সাজানো অনেকের কাছে কঠিন মনে হয়। এই রান্নাঘরকে সুন্দর আকর্ষণীয় করে তোলা সম্ভব সহজ কিছু উপায়ে। রান্নাঘর সাজানোর সময় মাথায় রাখুন এই বিষয়গুলো।

১। ভিন্ন নকশার তৈজসপত্র ব্যবহার
রান্নাঘরের প্রধান জিনিস হলো তৈজসপত্র। ভিন্ন নকশার, ভিন্ন ডিজাইনের তৈজসপত্র ব্যবহারের চেষ্টা করুন। কাপ, প্লেট, পাতিল ইত্যাদি কিছুটা ভিন্ন নকশার ব্যবহারের চেষ্টা করুন। ভিন্ন নকশা, ভিন্ন ডিজাইন আপনার রান্নাঘরে ভিন্ন একটা লুক এনে দেবে।

২। কনটেইনারের ব্যবহার
অনেকেই আছেন চিপস বা অন্য কোনো কিছুর সাথে আসা কনটেইনার দ্রব্য রাখার কাজে ব্যবহার করেন। এই কাজটি করা থেকে বিরত থাকুন। বাজারে নানান ধরনের সুন্দর সুন্দর কনটেইনার  কিনতে পাওয়া যায়। পণ্য রাখার জন্য এই কনটেইনারগুলো ব্যবহার করতে পারেন। যেমন হলুদ, মরিচ, ধনিয়া রাখার জন্য মশলা জার কিনতে পারেন।

৩। ডিজাইনার ডানিং সেট
যাদের রান্নাঘরের সামনে খাবারের ঘর তারা খাবারের ঘরে ভিন্ন নকশার ডানিং টেবিল ব্যবহার করতে পারেন। সবচেয়ে ভালো রান্নাঘরের দেওয়ালের রঙের বিপরীতে কোনো রং ব্যবহার করা। তবে লক্ষ্য রাখবেন রান্নাঘর থেকে যেনো খাবারের ঘর দেখা যায়।

৪। একটি থিম ঠিক করুন
পছন্দ হলেও কিনে নিলেন, এমনটি করার পরিবর্তে একটি থিম ঠিক করে সে অনুযায়ী তৈজসপত্র কিনুন। থিম হতে পারে রং অথবা রান্নাঘর সম্পর্কিত কোনো কিছু।

৫। শো-পিসের স্থান
রান্নাঘরে জায়গা থাকলে ছোট ছোট শো-পিস রাখতে পারেন। অনেকে রান্নাঘরের দেয়াল ছবি দিয়ে সাজিয়ে থাকেন। ছবির পরিবর্তে শো-পিস দিয়ে সাজাতে পারেন রান্নাঘর।

৬। দেয়ালের রং
রান্নাঘরের দেয়ালে হালকা রং ব্যবহার করুন। এটি রান্নাঘরকে কিছুটা বড় দেখাবে। রান্নাঘরের দেয়াল ময়লা হয়। তাই ওয়াশবেল রং ব্যবহার করুন।

৭। আসবাবপত্র এবং কেবিনেট
রান্নাঘরের আসবাবপত্র এবং কেবিনেট ব্যবহারের কিছুটা সচেতন হওয়া উচিত। রান্নাঘরের রং এবং আকৃতির অনুযায়ী কেবিনেট এবং আসবাবপত্র পছন্দ করুন।

Post A Comment: